নদীতে মিশছে ঔষধ – কি প্রভাব পড়ছে পরিবেশে ??

ঔষধ দূষণ: প্রকৃতি, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

0
526

আমরা হরহামেশাই শুনি পরিবেশ দূষণ, মাটি দূষণ, পানি দূষণ, বাতাস দূষণ, শব্দ দূষণ, ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু ঔষধ দূষণের কথা কখনো শুনেছেন? বর্তমানে ঔষধ দূষণ ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। ভয়ংকর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে স্বাস্থ্য, জীববৈচিত্র্য, বাস্তুতন্ত্র ও মানুষের উপর।

মানুষের ব্যাবহৃত বিভিন্ন প্রকার ঔষধ মিশছে নদী-নালা-জলাশয়, পরিবেশ ও মাটিতে। চক্রাকারে সেগুলো যাচ্ছে জলজ ও স্থলের প্রাণীদের শরীরে এবং ঘটাচ্ছে নানা বিপত্তি। গবেষণা বলছে – প্রায় ৬১ ধরণের বিভিন্ন ঔষধ নদী-খাল, বিল ও মাটিতে মিশছে। এর মধ্যে আছে ডায়াবেটিসের ঔষধ মেটফরমিন, হাঁপানির ঔষধ, মৃগী রোগের ঔষধ, কয়েক প্রকার এন্টিবায়োটিক, জন্মবিরতিকরণ ঔষধ, কিডনি রোগের ঔষধ, এই ঔষধগুলো সমানভাবে জলজ ও স্থলের পরিবেশ , প্রতিবেশ, বাস্তুতন্ত্র, খাদ্যশৃঙ্খল, খাদ্যজাল, ও জীববৈচিত্র্য ব্যাপকভাবে ক্ষতি করতেছে।

মাছের প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট হচ্ছে, পুরুষ মাছগুলো নারী মাছে রূপান্তরিত হচ্ছে অন্যান্য জলজ প্রাণীদের ক্ষেত্রেও নানা ধরণের জটিলতা সৃষ্টি করছে। যেমন রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমছে, প্রজনন ক্ষমতা কমছে,পরিপাকতন্ত্র কার্যকারিতা হারাচ্ছে ইত্যাদি। বিভিন্ন প্রকার পশু-পাখি ঔষধ ও মাদক দূষণের কারণে ইতোমধ্যেই নানা ধরণের জটিলতায় ভুগছে। সেগুলো খাদ্যশৃঙ্খল ও পুষ্টি চক্রের মাধ্যমে মানুষের শরীরে ফিরে আসতেছে যেটা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভয়ংকর।

আর মানুষের ঔষধ যেকোন প্রাণীর জন্যই খুব ক্ষতিকর। এতে করে অণুজীবগুলো একই সাথে ঔষধ প্রতিরোধী এবং এন্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠছে যা খুবই ভয়ংকর। এবং এই ঔষধ দূষণ খাদ্যশৃঙ্খল, পুষ্টি চক্র, শক্তি চক্র ও পানি চক্রের সাথে মিশে সমগ্র পরিবেশ, বাস্তুতন্ত্র, জীববৈচিত্র্যের খুব ক্ষতি করছে। যার বিরূপ প্রভাব শেষমেষ মানুষের উপরই পরছে।

ঔষধ দূষণের সাথে ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানের বর্জ্য (Active Biological Ingredients) সেগুলোও নদী, পরিবেশ, মাটি, পানি ও পুষ্টি চক্রের সাথে মিশছে।

এছাড়াও বিজ্ঞানীরা আশংকা প্রকাশ করেছেন মাদকের দূষণ নিয়েও। ঔষধের মতো মাদকও নদী-নালা-খাল-বিল-জলাশয়-মাটি-পরিবেশ ও পুষ্টিচক্রে দূষণ ঘটাচ্ছে যা অত্যন্ত ভয়ংকর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও জাতিসংঘ সতর্ক করেছে এবং আশংকা প্রকাশ করেছে যে ঔষধ ও মাদক দূষণের কারণে অণুজীব প্রতিরোধী (Anti Microbial Resistance) পরবর্তী মহামারী হিসেবে আবির্ভুত হতে যাচ্ছে এবং সে মহামারী করোনা মহামারীর চেয়েও খুব ভয়ংকর হবে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, জাতিসংঘ ও বিজ্ঞানীরা আশংকা প্রকাশ করেছে।

গবেষণাটি আমেরিকার প্রসিডিংস অব দা ন্যাশনাল একাডেমী অব সায়েন্স (পি.এন,এ,এস.) (PNAS) থেকে ফেব্রুয়ারী ২০২২ প্রকাশিত হয়েছে।

 

লিখেছেন
কামরুল হাসান

জিনতত্ত্ববিদ 

Advertisement

 

Ref: PNAS.org

https://www.pnas.org/doi/10.1073/pnas.2113947119#:~:text=As%20a%20consortium%20of%20127,Nations%20Sustainable%20Development%20Goal%206.3

পরিবেশ বিষয়ে আরো পড়ুন এখানে

 

 

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.