Friday, May 20, 2022
বাড়িস্বাস্থ্যপুষ্টিবিজ্ঞানমস্তিষ্কের সুস্থতা ও কর্মক্ষমতা বাড়ানোর উপায়

মস্তিষ্কের সুস্থতা ও কর্মক্ষমতা বাড়ানোর উপায়

- Advertisement -

আমাদের মস্তিষ্ক শরীরের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। তাই কীভাবে মস্তিষ্ককে সজীব রাখা যায়, সচল রাখা যায় তা নিয়ে গবেষণার শেষ নেই। সুসংবাদ হল মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়ানোর বিভিন্ন উপায় রয়েছে। আসুন নিচের লেখাটা থেকে জেনে নিই সেগুলোঃ 

পরিমিত ব্যায়াম মস্তিষ্কের সুস্থতায় অপরিহার্য
  • ব্যায়াম:

ব্যায়াম মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভালো রাখে সাথে সাথে স্মৃতিশক্তি প্রখর করতে সহায়তা করে। তাই নিয়মিত ব্যায়াম করা দারুণ উপকারী। 

 

  • সূর্যের আলো: 

সূর্যের আলো আমাদের শরীরে ভিটামিন-ডি তৈরী হতে সাহায্য করে এবং মস্তিষ্কের বুড়িয়ে যাওয়াকে ধীর করে দেয়। 

 

  • মেডিটেশন বা ধ্যানঃ
মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধিতে মেডিটেশন বা যোগব্যায়াম

মেডিটেশন মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে। সাথে সাথে বয়স-সম্পর্কিত ব্যাধি যেমন আলঝাইমার বা ডিমেনশিয়াও রোধ করতে সাহায্য করে ।

 

  • সঠিক ধরণের পুষ্টি:

খাবার তালিকা যেন সুষম হয় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। অর্থাৎ সব ধরনের পুষ্টি উপাদান যেন প্রতিদিনের খাবারে থাকে সেভাবে খাবার তালিকা সাজাতে হবে। কলা, পালংশাক, ব্রকলি এগুলোতে ভিটামিন-কে, লুটেইন, ফলেট এবং বিটা ক্যারোটিন রয়েছে যেসব পুষ্টি উপাদান মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও টমেটো, স্ট্রবেরি, বাদাম, হোলগ্রেইন (ওটস, লাল চাল), ডাল, কমলা, গ্রিন-টি মস্তিষ্কের জন্য উপকারী খাবার। 

 

  • বিশ্রাম/ ঘুম:

পর্যাপ্ত ঘুম না হলে মস্তিষ্কের ক্ষমতা কমে যায়। আমাদের সংস্কৃতিতে বিশ্রামকে অনেক সময় ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখা হয়। অনেকেই ভাবেন বিশ্রাম হল অলসতার আরেক নাম। কিন্তু সত্যি ব্যাপারটা হল পর্যাপ্ত বিশ্রাম বা ঘুম ভালোভাবে কাজ করা এবং স্মার্টভাবে কাজ করার সহায়ক হাতিয়ার হিসাবে কাজ করে; অন্যথায় নিজেকে দীর্ঘক্ষণ নিরবিচ্ছিন্নভাবে কাজে যুক্ত রাখার ফলে অনেক সময় কাজের মান কমে যেতে পারে শুধু তাই নয় কমে যেতে পারে কাজের প্রতি সৃজনশীলতা এবং নতুন কিছু সৃষ্টির আগ্রহও। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নেয়ার ফলে আমাদের মস্তিষ্ক সজীব হয়ে ওঠে সাথে সাথে তা কাজের প্রতি আগ্রহ বাড়াতে সহায়তা করে। 

 

  • শখ:
শখের কাজ মস্তিষ্ককে প্রশান্তি দান করে

আমাদের শখের কাজগুলো মস্তিষ্ককে শিথিল করতে সহায়তা করে। যেমনঃ বাদ্যযন্ত্র বাজানো, ব্যায়াম, নতুন ভাষা শেখা, মেডিটেশন, বই পড়া, বাগান করা, ছবি আঁকা ইত্যাদি। 

 

  • বই পড়া:

বই পড়লে যে জ্ঞান বৃদ্ধি পায় তা আমরা সবাই জানি । বই পড়লে আমাদের মস্তিষ্ক সজীব থাকে, মস্তিষ্কের সংযোগগুলো শক্তিশালী হয় আর সাথে সাথে কমে মানসিক চাপ। একটি ভালো বই মস্তিষ্ককে পুনরায় কঠিন কিছু নিয়ে কাজ করতে বা ভাবতে অনুপ্রেরণা দেয়। 

 

সবার মস্তিষ্কের সুস্বাস্থ্য কামনা করছি!

মিশু দাস

পুষ্টিবিদ

 

 

বিজ্ঞান পত্রিকার ইউটিউব চ্যানেল চালু হয়েছে।
এই লিংকে ক্লিক করে ইউটিউব চ্যানেল হতে ভিডিও দেখুন।
- Advertisement -

সম্পর্কিত খবর

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

Stay Connected

যুক্ত থাকুন

300,762ভক্তমত
1,030গ্রাহকদেরসাবস্ক্রাইব

Must Read

সম্পর্কিত পোস্ট

- Advertisement -
- Advertisement -

সবসময়ের জনপ্রিয়

সবচেয়ে আলোচিত

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -