প্রথমবারের মতো তোলা হলো ব্ল্যাক হোলের ছবি

3
602

ব্ল্যাক হোল বা কৃষ্ণগহ্বরের ছবি তোলা হয়েছে প্রথমবারের মতো। দুই বছর ধরে নিরলস তথ্য সংগ্রহ এবং পর্যবেক্ষণ শেষে গতকাল ১০ এপ্রিল এই ছবি প্রকাশ করা হয়।

ব্ল্যাক হোল অবশ্য অদৃশ্য বস্তু, কারণ এর মাধ্যাকর্ষণ বল হতে আলোও বেরিয়ে আসতে পারে না। আলো না আসায় আমরা এটিকে দেখতে পাব না। কিন্তু এর একটি সীমা আছে। কেন্দ্র হতে একটি নির্দিষ্ট দূরত্বের পর মাধ্যাকর্ষণের প্রভাব যথেষ্ট কম থাকায় সে পৃষ্ঠ হতে আলো নির্গত হতে পারে এবং তাই সেই অবধি দেখা যেতে পারে। এই নূন্যতম পৃষ্ঠটিকে বলা হয় ইভেন্ট হরাইজন। মূলতঃ ১০ এপ্রিল আমরা ইভেন্ট হরাইজনের ছবিই দেখতে পেয়েছি।

ইতিপূর্বে কম্পিউটারে সিমুলেশন করে ব্ল্যাক হোলের ছবি তৈরি করা হয়েছিলো এবং সেই আদলে ইন্টারস্টেলার মুভিতে একটি ব্ল্যাক হোল দেখানোও হয়েছিল। বর্তমান আসল ছবিটি সেই সিমুলেশনের বেশ কাছাকাছি।

কম্পিউটারে সিমুলেশনের মাধ্যমে তৈরি ব্ল্যাক হোল
ইন্টারস্টেলার ছবিতে দেখানো ব্ল্যাক হোল
ব্ল্যাক হোলের প্রকৃত ছবি বা বিম্ব

এই ব্ল্যাক হোলটি M87 নামের ভার্গো -এ গ্যালাক্সির কেন্দ্রে অবস্থান করছে। এটি পৃথিবী হতে ৫.৩ কোটি আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। গ্যালাক্সিটির ব্যস ৬০ হাজার আলোকবর্ষ। অবগতির জন্য জানানো যায় আমাদের মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সির ব্যস ১ লক্ষ আলোকবর্ষ।

ছবিতে ব্ল্যাক হোলের চারপাশের রিংটি অসমভাবে বিন্যাস্ত মনে হচ্ছে। এর কারণ হলো ব্ল্যাক হোলের শক্তিশালী মাধ্যাকর্ষণ আলোকে এর চারপাশে বাঁকিয়ে দেয়। ফলে এই ঘুর্ণনরত ব্ল্যাক হোলের যে অংশটি ঘুরে আমাদের দিকে আসে তা অপেক্ষাকৃত উজ্জ্বল দেখায় আর যে অংশটি আমাদের কাছ থেকে দূরে সরে যেতে থাকে তা অনুজ্জ্বল দেখায়।

ব্ল্যাক হোলটির ভর প্রকান্ড। আমাদের সূর্যের কথা ভাবুন। ব্ল্যাক হোলটি আমাদের সূর্যের তুলনায় ৬৫০ কোটিগুণ ভারী! এই সম্পূর্ণ ভরটি অতিমাত্রায় সংকুচিত হয়ে একটি বিন্দুর মতো অবস্থায় আছে।

ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলার স্বপ্নদ্রষ্টা নেদারল্যান্ডের র‌্যাডবাউড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হেইনো ফ্যালকে। এই ধারনা তাঁর মাথায় আসে ১৯৯৩ সালে যখন তিনি পিএইচডি গবেষক ছিলেন। সেই সময় ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলা সম্ভব এমনটি কেউ ভাবেননি। তিনিই সর্বপ্রথম উপলব্ধি করেন ব্লাক হোলের নিকটবর্তী অঞ্চল হতে কিছু রেডিও বিকিরণ নির্গত হয় যা পৃথিবী হতে টেলিস্কোপের মাধ্যমে সনাক্ত করার জন্য যথেষ্ট। তাছাড়া ১৯৭৩ সালে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে তিনি দেখতে পান তীব্র মাধ্যাকর্ষণ বলের কারণে ব্ল্যাক হোল তার প্রকৃত আকারের চেয়ে আড়াইগুণ বড় দেখায়।

এই দুটি বিষয়কে মাথায় রেখে প্রফেসর ফ্যালকে ব্ল্যাক হোল সনাক্ত করার ব্যাপারে আশাবাদী হয়ে ওঠেন। ২০ বছর ধরে নানাবিধ যুক্তি-তর্ক উপস্থাপন শেষে অবশেষে তিনি ইউরোপীয় রিসার্চ কাউন্সিলকে ব্ল্যাক হোল সনাক্তের জন্য অর্থ বরাদ্দ জন্য রাজী করাতে সক্ষম হন। এশিয়ার বিভিন্ন বিজ্ঞান ফাউন্ডেশন এবং এজেন্সীও পরবর্তীতে এতে যোগ দেয়। এর সর্বমোট বরাদ্দ পৌঁছায় ৪০ মিলিয়ন পাউন্ডে।

একক কোনো টেলিস্কোপ ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলার জন্য যথেষ্ট ছিলো না। তাই হার্ভার্ড-স্মিথসোনিয়ান সেন্টার অব এস্ট্রোফিজিক্সের অধ্যাপক শেফার্ড ডোয়েলম্যান এর নেতৃত্বে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে থাকা আটটি টেলিস্কোপের একটি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হয়। বায়ুদূষণ এড়াতে এই টেলিস্কোপগুলো ভূ-পৃষ্ঠ থেকে উঁচু স্থানে, পর্বত শীর্ষে স্থাপন করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে হাওয়াই ও মেক্সিকোর আগ্নেয়গিরি, অ্যারিজোনার পর্বতমালা, স্পেনের সিয়েরা নেভাদা, চিলির অ্যাটাকামা মরুভূমি এবং এ্যান্টার্কটিকা। এই টেলিস্কোপ নেটওয়ার্কের নাম ইভেন্ট হরাইজন টেলিস্কোপ।

ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলায় ব্যবহৃত রেডিও টেলিস্কোপ

দীর্ঘ দুই বছর ধরে জুম করে লক্ষ্য স্থির করার পর ২০০ বিজ্ঞানীর একটি দল এই টেলিক্সোপের নেটওয়ার্কটিকে M87 গ্যালাক্সির কেন্দ্রে তাক করেন এবং ১০ দিন যাবৎ সংকেত সংগ্রহ করেন। এই তথ্য এতোই বিশাল যে ইন্টারনেটের মাধ্যমে তা পাঠানো সম্ভব হয় নি বরং তথ্যগুলোকে অনেকগুলো হার্ডডিস্কে সংগ্রহ করে যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন এবং জার্মানীর বনে কেন্দ্রীয় প্রসেসিং সেন্টারে পাঠানো হয়। সেখানকার তথ্য বিশ্লেষণ শেষে ব্ল্যাক হলের ছবি উন্মুক্ত করা হয়।

তথ্য সংরক্ষণে ব্যবহৃত হার্ডডিস্ক

গবেষকদের এই দলটি আমাদের নিজেদের গ্যালাক্সি মিল্কি ওয়ের কেন্দ্রের সুপারম্যাসিভ ব্ল্যাক হোলটিরও ছবি তোলার চেষ্টা করছে। তবে আশ্চর্যজনকভাবে এত কাছে থাকা সত্ত্বেও ব্ল্যাকহোলটি চতুর্দিকের আলোর উজ্জ্বলতা অপেক্ষাকৃত কম।

-ইমতিয়াজ আহমেদ
সম্পাদক, বিজ্ঞান পত্রিকা
(লেখকের ফেসবুক প্রোফাইল)

বিজ্ঞান পত্রিকা প্রকাশিত ভিডিওগুলো দেখতে পাবেন ইউটিউবে। লিংক:
১. টেলিভিশনঃ তখন ও এখন
২. স্পেস এক্সের মঙ্গলে মানব বসতি স্থাপনের পরিকল্পনা
3. মাইক্রোস্কোপের নিচের দুনিয়া

3 মন্তব্য

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.