কৃষ্ণগহ্বর-৫ : আলোর কচড়া

0

ফরাসি জ্যোতির্বিদ জিওভ্যানি ক্যাসিনি। সপ্তদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি কোনো এক সময়ে লক্ষ করলেন এক আশ্চর্য ঘটনা। আমরা জানি, সৌরজগতের গ্রহগুলো সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। প্রত্যেকের একটা নির্দিষ্ট কক্ষপথ আছে। কক্ষপথগুলো গোলাকার নয়। উপবৃত্তাকার। সুতরাং এর গ্রহগুলো সব সময় পরস্পর থেকে সমান দূরত্বে অবস্থান করে না। পৃথিবী আর বৃহস্পতির ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটে।

ক্যাসিনি বৃহস্পতিগ্রহের উপগ্রহগুলোতে যে গ্রহণ লাগে, সেগুলো পর্যবেক্ষণ করছিলেন। বৃহস্পতির উপগ্রহের গ্রহণকাল আগে থেকেই ভবিষ্যদ্বাণী করা যায় এবং সেটা খুব সহজেই।

ক্যাসিনি দেখালেন, বছরের যে সময়ে বৃহস্পতি পৃথিবীর খুব কাছে থাকে, তখন আগে অনুমান করা সময়ের কয়েক মিনিট আগেই গ্রহণ দেখা যায়। আবার বছরের যে সময়ে বৃহস্পতি সূর্য থেকে সবচেয়ে দূরে থাকে, সেই সময়ে গ্রহণ দেখা যায় অনুমিত সময়ের কয়েক মিনিট পরে।

এর মানে কী?

এর ব্যাখ্যা ছিল না ক্যাসিনির কাছে। তখনই এগিয়ে এলেন ডেনিশ জ্যোতির্বিদ ওলে ক্রিস্টেনসন রোমার। কোনো উৎস থেকে আলো এসে যখন আমাদের চোখের রেটিনায় আঘাত করে, তখনই সেই বস্তুটা আমরা দেখতে পাই। বৃহস্পতির দুটি গ্রহণের সময়ের যে পার্থক্য ঘটে, তার কারণ দুই স্থান থেকে আলো আসতে দুই রকম সময় লাগছে।

বিখ্যাত গ্রিক দার্শনিক ও গণিতবিদ ইউক্লিড মনে করতেন, মানুষের চোখ থেকে আলো বের হয়। সেই আলো গিয়ে পড়ে বস্তুর ওপর। তারপরই সেই বস্তুকে দেখতে পায় মানুষ। ইউক্লিডের এই ধারণা ভুল, এখনকার স্কুলের বাচ্চারাও সেটা বোঝে। কিন্তু দশম শতাব্দীতে সেটা বোঝা অত সহজ ছিল না। বিশ্ব বিজ্ঞানে গ্রিক পতিদের তখন দেবতার আসন।

দ্বিতীয় শতাব্দীতে টলেমি একের পর এক ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে অ্যারিস্টোটলের বেশির ভাগ মতকেই প্রতিষ্ঠিত করেছেন। আলোর ব্যাপারেও এর ব্যতিক্রম হয়নি। ইউক্লিডের ভুল ধারণার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে টলেমি সেটাকে আগলে রেখেছিলেন যুগ যুগ ধরে।

সেই ধারণাতেই কুঠারাঘাত করলেন আল হাজেন। ইরাকি পণ্ডিত আল হাসান ইবনে আল-হাইসামের। লাতিন আর ইউরোপীয় বিজ্ঞানীরা যাঁকে চেনেন আল হাজেন নামে। বললেন, মানুষের চোখ থেকে নয়, বস্তু থেকে আলো প্রতিফলিত হয়ে এসে যখন আমাদের চোখের ওপর পড়ে, তখনই আমরা বস্তুটাকে দেখি।

অনেকেই তখন রে-রে করে তেড়ে এলেন, জাত গেল জাত গেল বলে চিৎকার-চেঁচামেচি করলেন–কোথাকার কোন আল-হাসানের ধৃষ্টতা কেমন করে হলো ইউক্লিড-টলেমির তত্ত্ব ছুড়ে ফেলার! তখন হাজেন সমর্থন পেলেন আরবের দুই বিখ্যাত পণ্ডিত ইবনে সিনা আর আলবেরুনির।

মিসর হলো নীল নদের দান। সেই নীল নদই প্রতিবছর বন্যায় ভাসিয়ে দিত মিসরকে। যুগ যুগ ধরে সেই ধারা চলছে। দশম শতাব্দীর মিসরের খলিফা চাইলেন সেই বন্যা থেকে চিরস্থায়ী মুক্তি। এ জন্য তিনি শরণাপন্ন হলেন আল-হাজেনের।

হাজেন এলেন কায়রোয়। বন্যাপরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে হাতে নিলেন বাঁধ নির্মাণের একটা প্রকল্প। হাজেন অনেক যাচাই-বাছাই করে দেখলেন, বাঁধ নির্মাণ সম্ভব নয়। কিন্তু সে কথা বললেন না খলিফাকে। বরং সময় চাইতে থাকলেন দিনের পর দিন। রাজপণ্ডিত হওয়ার সুবিধা অনেক। ইচ্ছেমতো গবেষণা করা যায়, অর্থকড়ির ভাঁড়ারেও টান পড়ে না।

বাঁধ নির্মাণ সম্ভব নয়, তাই সেই টাকা আর রাজসুবিধা ভোগ করে আল হাজেন শুরু করলেন বৈজ্ঞানিক গবেষণা। আলোর ওপর করলেন মৌলিক কিছু কাজ।

আল হাজেন বাঁধ নির্মাণ করতে পারেননি। তাই খলিফা খেপে গিয়েছিলেন একসময়। শোনা যায়, তখন পাগলের ভান ধরেই হাজেন রয়ে গিয়েছিলেন মিসরে। গোপনে আলো নিয়ে গবেষণা করেছেন, লিখেছেন সাত খণ্ডের ঢাউস এক বই–কিতাব আল-মানাজির। ইংরেজি অনুবাদে যার নাম হয় বুক অব অপটিকস। এই বইয়ে হাজেন বলেন, আলো ঘন মাধ্যম থেকে হালকা মাধ্যমে গেলে এর গতি কমে যায়। আগে মানুষ মনে করত, আলোর গতি অসীম।

পরে হাজেনের সেই ধারণা অনুপ্রাণিত করে ত্রয়োদশ শতাব্দীর বিখ্যাত ফরাসি পণ্ডিত রজার বেকনকে। তিনি আল হাজেনের সঙ্গে একমত হয়ে বলেন, আলোর গতি অনেক বেশি। শব্দের চেয়েও বেশি, কিন্তু গতি অসীম নয়।

তখন আরেকটা মতবাদ ছিল আলোর গতির ব্যাপারে। পণ্ডিতেরা মনে করতেন, শূন্য মাধ্যমে আলোর গতি অসীম, কিন্তু বায়ুমাধ্যমের ভেতর দিয়ে চলতে গিয়ে ধীর হয়ে যায় আলো।

সপ্তদশ শতাব্দীতে এসে বিখ্যাত জার্মান বিজ্ঞানী জোহান কেপলারকেও অনুপ্রাণিত করে আল হাজেনের তত্ত্ব। তিনিও অপটিকস নামে আলোকতত্ত্বের ওপর বিখ্যাত একটা বই লেখেন। যে বইটি নিউটনের আলোক গবেষণার খোরাক জোগায়। সেই বইয়ে কেপলার লেখেন, শূন্য মাধ্যমে আলোর চলাচলের জন্য কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই।

১৬২৯ সাল। ডাচ দার্শনিক আইজ্যাক বিকম্যান একটা পরীক্ষার প্রস্তাব করলেন। কামান থেকে বেরোনো একটা আলোকরশ্মি, সেটাকে প্রতিফলিত করতে হবে এক মাইল দূরের কোনো আয়নায়। যদি প্রতিফলিত হয়ে ফিরে আসতে সময় নেয়, তাহলে নিশ্চিত হওয়া যাবে, আলোর গতির সীমা আছে। কিন্তু সেই পরীক্ষা কেউ করে দেখেননি।

কাছাকাছি সময়ে ইতালিয়ান পদার্থবিদ গ্যালিলিও গ্যালিলি করলেন এমনই এক পরীক্ষা। তবে বিকম্যানের প্রস্তাবের খবর জানতেন না গ্যালিলিও। গ্যালিলিও দেখলেন, আলো দূরত্ব অতিক্রম করতে সময় নেয় না। সেটা গ্যালিলিওর ভুল ছিল। আলোর গতি খুব বেশি। সেকেন্ডে এক লাখ ছিয়াশি হাজার মাইল। তাই এক মাইল দূরে রাখা আয়না থেকে প্রতিফলিত হয়ে আসতে আলোর সময় লাগবে এক সেকেন্ডের এক লাখ ছিয়াশি হাজার ভাগের মাত্র এক ভাগ। এত ক্ষুদ্র সময় মাপতে পারে এমন প্রযুক্তি তখন গ্যালিলিওর কাছে ছিল না। তাই তিনি বুঝতে পারলেন না আলো চলতে সময় নেয়। এর পরেই ক্যাসিনির আবির্ভাব।

বৃহস্পতির উপগ্রহের গ্রহণকাল সমস্যা, যেটার কটথা অধ্যায়ের শুরুতেই বলেছি–সেটা নিয়ে রোমার ভাবলেন, এর অর্থ একটাই। আলোকক্রিয়া কোনো তাৎক্ষণিক ঘটনা নয়। অর্থাৎ আলোর একটা নির্দিষ্ট গতি আছে। তবে আলোর গতিটা খুব বেশি। বৃহস্পতির সঙ্গে পৃথিবীর দূরত্ব অনেক। বছরের দুটি আলাদা সময়ে দূরত্বের যে পার্থক্য হয়, সেটাও কম নয়। তাই বৃহস্পতির উপগ্রহের গ্রহণের ঘটনা প্রমাণ করে দেয় আলোর গতিবেগ নির্দিষ্ট।

রোমার আলোর গতি মাপেন সেকেন্ডে এক লাখ চুয়াল্লিশ হাজার মাইল। এটা আধুনিক পরিমাপের চেয়ে অনেক কম। কিন্তু সেই কালে আলোর গতি মাপার এত সূক্ষ্ম যন্ত্র ছিল না। সুতরাং রোমারের মাপা এই মানটার গুরুত্ব অনেক।

সপ্তদশ শতাব্দীতে ক্রিশ্চিয়ান হাই আলোর রগতি মাপেন সেকেন্ডে ৩ লক্ষ কিলোমিটার । তবে তিনি বললেন, শব্দের মতো আলোও তরঙ্গাকারে চলে। মার্কিন বিজ্ঞানী তাঁর থমাস ইয়াং বিখ্যাত ‘ডাবল স্লিট’ পরীক্ষার মাধ্যমে প্রমাণ করে দিলেন, হাইগেনসই ঠিক, আলো চলে তরঙ্গাকারে।

এর আগে নিউটন বলেছিলেন, আলো আসলে গতিশীল ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কণার সমষ্টি। তরঙ্গাকারে চলতে গেলে মাধ্যমের দরকার হয়। শব্দের কথাই ধরা যাক। শব্দ বাতাসের বুকে ঢেউ তোলে। তারপর বাতাস কাঁপিয়ে সে ছড়িয়ে পড়ে আশপাশে। আলোর তরঙ্গ কিসের ওপর ঢেউ তোলে? বাতাসে ঢেউ তোলার প্রশ্নই ওঠে না। তাহলে আলো চলাচলের মাধ্যমটা কী?

তখন বিজ্ঞানীরা কল্পনা করলেন এক অদৃশ্য মাধ্যমের। নাম তার ইথার। ধরে নেওয়া হলো, শূন্যস্থানেও ইথারের অস্তিত্ব আছে।

কিন্তু সমস্যা একটা রয়েই গেল।

আলো যদি ইথারের মধ্য দিয়ে চলে, সেই ইথার কি সব জায়গায়ই আছে? বহুদূরের নক্ষত্র থেকে আসা আলোকরশ্মিও ইথার মাধ্যম পাড়ি দিয়ে আসে? নাকি গোটা মহাবিশ্বই ইথারে নিমজ্জিত?

১৮৬৫ সালে স্কটিশ পদার্থবিদ জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল তাঁর বিখ্যাত বিদ্যুৎচুম্বকীয় সমীকরণগুলো প্রতিষ্ঠা করলেন। এই সমীকরণ বলে, আলোও একপ্রকার তড়িচ্চুম্বকীয় তরঙ্গ। ম্যাক্সওয়েলের সমীকরণ থেকেই বেরিয়ে এল, চলার জন্যআলোক তরঙ্গের কোনো মাধ্যমের দরকার হয় না। সেখান থেকেই ইথারের ধারণার বিষয়ে সন্দেহ তৈরি হয়। কারণ,  ম্যাক্সওয়েলের সমীকরণ থেকে বেরিয়ে এসেছে আলোর বেগের নির্দিষ্ট মান। আর সেটা সেকেন্ডে তিন লাখ কিলোমিটার। আর সেটা হাইগেনেসের মাপা মানের সাথে মিলে যায়।

ঝামেলা হলো ইথার নিয়ে। ইথারের ব্যাপারটা ম্যাক্সওয়েলই মানতে পারেননি। বাতাসে শব্দ তরঙ্গাকারে চলে। যতক্ষণ শব্দ তরঙ্গন্যূনতম শক্তি ধরে রাখতে পারে, ততক্ষণ চলে। আমরা দেখি শব্দ তরঙ্গ একটানা চলতে পারে না। একসময় তা বাতাসের বাধার কারণেই থেমে যেতে বাধ্য হয়। ইথার যদি আলোর এমন মাধ্যম হয়, তাহলে একসময় আলোকেও থামিয়ে দিতে সক্ষম!

ম্যাক্সওয়েল বললেন, যদি ইথার বলে কিছু থাকে, তবে আলোর ক্ষেত্রের এমন ঘটনা ঘটা উচিত। অর্থাৎ যখন ইথারের ভেতর দিয়ে আলোর দিকে ছোটা হবে তখন আরও দ্রুত আলোর কাছাকাছি চলে আসা উচিৎ। অর্থাৎ আলোর বেগ তখন বেশি হবে। আবার খুব দ্রুত গতিতে ইথারের ভেতর দিয়ে আলো যেদিকে যাচ্ছে সেদিকে ছুটলে আলো পিছিয়ে পড়ার কথা। ম্যাক্সওয়েল ভাবলেন ইথার যদি থেকেই থাকে তবে পৃথিবীও ইথারের মধ্যে নিমজ্জিত পৃথিবী সূর্যের চারপাশে বৃত্তাকারে (আসলে উপবৃত্তাকারে) ঘুরছে। তাই জানুয়ারি মাসে পৃথিবীর অভিমুখ সেদিকে জুলাই মাসে তার ঠিক উল্টো দিকে। তেমনি অক্টোবর মাসের পৃথিবীর অভিমুখ এপ্রিল মাসের অভিমুখের উল্টো দিকে হবে। নিচের চিত্রের মতো।

ইথারের অস্তিত্ব থাকলে জানুয়ারি ও জুলাই মাসে পৃথিবীতে আলোর বেগের ভেতর পার্থক্য দেখা যাবার কথা। ম্যাক্সওয়েল তার ধারণার কথা রয়ল সোসাইটির জার্নাল ‘প্রসিডিং অব রয়্যাল সোসাইটি’র সম্পাদককে জানান।

কিন্তু আলোকে কখনো থামানো যায় না।ম্যাক্সওয়েল তাঁর ধারণার কথা রয়্যাল সোসাইটির জার্নাল প্রসিডিং অব রয়্যাল সোসাইটির সম্পাদককে জানান। কিন্তু সম্পাদক ম্যাক্সওয়েলের ধারণাকে যুক্তিযুক্ত মনে করেননি। তবে ম্যাক্সওয়েলের ধারণায় অনুপ্রাণিত হলেন আমেরিকান পদার্থবিদ আলবার্ট মাইকেলসন।

১৮৮৭ সালে  তাঁরা একটা পরীক্ষা করলেন। মাইকেলসন-মর্লির পরীক্ষা নামে সেটা পদার্থবিদ্যার ইতিহাসে অমর হয়ে আছে। মাইকেলসন-মর্লি পৃথিবীর সাপেক্ষে দুবার আলোর গতির পরীক্ষাটি চালালেন। একবার আলোর গতি নির্ণয় করা হলো পৃথিবীর গতির অভিমুখে। আরেকবার নির্ণয় করা হলো পৃথিবীর গতির সমকোণে। এজন্য তারা ব্যবহার করলেন দুটি আয়না। একটা আয়না রাখা হলো পৃথিবীর গতির অভিমুখে। আরেকটা পৃথিবীর সমোকোণে। এভাবে যে যন্ত্রটা তৈরি হলো, তার নাম ইন্টারফেরোমিটার।

দুই আয়না থেকে সমান দূরত্বে, তাদের সমকোণো অর্ধরৌপায়িত একটা আয়না রাখা হলো। পৃথিবীর গতির অভিমুখে রাখা আয়না থেকে প্রতিফলিত রশ্মির কিছু অংশ অর্ধরৌপায়িত আয়নায় প্রতিফলিত পর্যবেক্ষণ স্থলে পৌঁছবে। আর পৃথিবীর সমোকোণে রাখা আয়না থেকে প্রতিফলিত আলোর কিছু অংশ অর্ধরৌপায়িত আয়নার ভেতর দিয়ে এসে পর্যবেক্ষণ স্থলে পৌঁছবে। একটা আলোক উৎস থেকে মাইকেলসন ও মর্লি দুবার দুই আয়নায় দুটি আলোক রশ্মি পাঠালেন। দুবরাই তারা আলোর গতির মান নির্ভুলভাবে একই পেলেন।

দেখা যাক ইথার নামে কোনো বস্তু থাকলে আলোর বেগের ভিন্নতা কেমন হতো। ধরা যাক, একটা সমূদ্রে জাহাজ চলছে। ধরা যাক সমুদ্র শান্ত। জাহাজ যখন পানির স্রোত কেটে সামনে এগিয়ে যায়, তখন জাহাজের বিপরীতে পানির একটা স্রোত প্রবাহিত হয়। জাহাজের গতি কিছুটা হলেও শ্লথ করে দেয় পানির সেই স্রোত। বিজ্ঞানীরা মনে করতেন পৃথিবী ইথার সমুদ্রে ভাসমান এটা জাহাজের মতো। পৃথিবী ইথারের স্রোত ঠেলে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। যেেিদকে চলছে ইথারকেও সেদিকে বয়ে নিয়ে যাচ্ছে। কিন্তুপৃথিবীর গতির অভিমুখে ইথারের একটা স্রোত তৈরি হবে। পৃথিবী পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে ঘুরছে। তাই পূর্ব-পশ্চিম বরাবর স্রোতের অভিমুখ হবে। উত্তর-দক্ষিণ বরাবর পৃথিবীর গতির কোনও অভিমুখ নেই। তাই  উত্তর দক্ষিণে স্রোতের কোনও অভিমুখ থাকবে না। যখন আলোক রশ্মিকে পৃথিবীর গতির অভিমুখে পাঠানো হবে, আলোকে তখন ইথারের গতির বিপরীতে যেতে হয়। আলো ইথারের দ্বারা বাধাগ্রস্ত হয়। ঠিক পানির স্রোত যেমন জাহাজের গতিকে শ্লথ করে দেয়। ইথারও তেমন আলোর গতিকে শ্লথ করে দেবে। ইথার তরঙ্গ যদি সত্যিই থেকে থাকে তাহলে পশ্চিম-পুর্ব বরাবর যে রশ্মি পাঠানো হয়েছিল তা উত্তর-দক্ষিণ বরাবর পাঠানো রশ্মির চেয়ে ধীরে চলবে। তাই ফিরে আসতেও সময় লাগবে। কিন্তু মাইকেলসন-মর্লি পরীক্ষার ফলফল বলছে, দুইদিকে আলোকরশ্মিই ফিরে আসে একই সময়ে।

 

ইথার তরঙ্গ যদি থাকত, তাহলে দুবার দুরকম ফল পাওয়া যেত। কিন্তু মাইকেলসন-মর্লি একই ফল পেলেন। তাহলে কি ইথারের বাধা ছিল না? মাইকেলসন-মর্লির পরীক্ষা থেকেই আসলে প্রমাণ হলো ইথার বলে কিছু নেই। পরীক্ষা হলো, প্রমাণ হলো। কিন্তুব্যাখ্যা হলো না। তবে একদিন ইথারের অস্তিত্ব ভেঙে পড়ল। এর জন্য অপেক্ষা করতে হলো বহুদিন।

ইথারের অস্তিত্ব ভেঙে পড়ল। কিন্তু অনেক বিজ্ঞানী সেটা মানতে পারলেন না। তাঁরা উঠেপড়ে লাগলেন বিভিন্ন প্রকল্প দাঁড় করিয়ে ইথার সংক্রান্ত জটিলতা দূর করার জন্য। বিশেষ করে কিছু বিজ্ঞানী ইথারকে বাদ দিতে একেবারে নারাজ ছিলেন। তাই তাঁরা ইথারকে ধরে রাখতে ভিন্ন পথ অবলম্বন করলেন।

এর মধ্যে আইরিশ বিজ্ঞানী ফিট জেরাল্ডের প্রকল্পটা ছিল অন্যতম। তিনি বললেন, গতির অভিমুখে পাঠানো আলো ফিরে আসতে বেশি সময় লাগত, কিন্তু গতির কারণে ইন্টারফেরোমিটারের দৈর্ঘ্য সংকুচিত হয়েছে। অর্থাৎ আলোর গতিপথ  কমে গেছে। এই গতিপথ ততটুকুই কমেছে, যতটুকু কমলে পৃথিবীর লম্ব বরাবর পাঠানো আলোকরশ্মি যে সময়ে ফিরে আসে, সেই সময়ে ফিরতে পারে। সংকোচনের পরিমাণ কতটুকু হবে, তা নির্ভর করবে বস্তুর বেগের ওপর। এখানে ইন্টারফেরোমিটার চলছে পৃথিবীর গতিতে। তিনি হিসাব করে দেখালেন, ১ মিটার দৈর্ঘ্যরে একটা বস্তু যদি আলোর বেগের অর্ধেক গতিতে চলে, তাহলে তার দৈর্ঘ্য কমে দাঁড়াবে ০.৮৬৬ মিটারে।

তাঁর প্রকল্পের সূত্রধরে ডাচ বিজ্ঞানী হেনড্রিক অ্যান্টন লরেনৎস আরেকটি প্রকল্প হাতে নেন। ফিটজেরাল্ড আর লরেনৎস মিলে দাঁড় করালেন ফিটজেরাল্ড-লরেনৎস প্রকল্প। এই প্রকল্পে তাঁরা কতগুলো সমীকরণ ব্যবহার করেন। ম্যাক্সওয়েলের তড়িচ্চুম্বকীয় সমীকরণগুলোকে ফিটজেরাল্ড-লরেনৎস প্রকল্পের মাধ্যমে দুটি ভিন্ন প্রসঙ্গ কাঠামোতে ব্যবহার করা যায়। মাইকেলসন-মর্লির পরীক্ষা থেকে ইথার অস্তিত্বহীন হয়ে পড়ে। কিন্তু তাঁরা ইথারের ধোঁয়াশা সমাধান করতে পারেননি।

১৯০৫ সালে এল সমাধান, আলবার্ট আইনস্টাইনের হাত ধরে। আইনস্টাইন তাঁর আপেক্ষিক তত্ত্বে ব্যবহার করলেন এই সূত্রগুলো। কিন্তু ফিটজেরাল্ড আর লরেনৎস সমীকরণগুলো ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন ইথারকে বাঁচাতে আর আলোর বেগ ধ্রুব নয়, এটা প্রমাণ করতে। আইনস্টাইন ওইগুলো ব্যবহার করে আলোর বেগের ধ্রুবতা প্রমাণ করলেন।

আইনস্টাইন আপেক্ষিক তত্ত্বে গ্যালিলিওর রূপান্তর সমীকরণগুলোকে লরেনৎস রূপান্তর সমীকরণ দিয়েপ্রতিস্থাপিত করলে। বেরিয়েএল আলোর বেগের ধ্রুবতা। আইনস্টাইন আরও বললেন, আলোর গতির চেয়ে বেশি গতি আর কোনো বস্তুর হতে পারে না। আইনস্টাইনের সেই তত্ত্ব এখনো বুক ফুলিয়ে রাজত্ব করছে প্রাকৃতিক বিজ্ঞানে।

আগের পর্ব :

কৃষ্ণগহ্বর-৪ : নিউটনের কামান আর পৃথিবীর মুক্তিবেগ

কৃষ্ণগহ্বর-৩ : নিউটনের মহাকর্ষে

কৃষ্ণগহ্বর-২ : মহাকর্ষের পটভূমি

কৃষ্ণগহ্বর-১ : ফিরে দেখা ইতিহাস

-আব্দুল গাফফার রনি
সহসম্পাদক, মাসিক বিজ্ঞানচিন্তা
[লেখকের ফেসবুক প্রোফাইল]

Share.

মন্তব্য করুন