শব্দ তরঙ্গের মাধ্যমে রক্ত পরীক্ষার অভিনব ও বুদ্ধিদীপ্ত পদ্ধতি উদ্ভাবন

0

বিজ্ঞানীরা শব্দ তরঙ্গের মাধ্যমে রক্ত পরীক্ষা করার একটি নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন। এর ফলে রক্ত পরীক্ষার ব্যবস্থা বর্তমানের তুলনায় আরো সহজ, বহনযোগ্য পরীক্ষা কীট আকারে তৈরি করা সম্ভব হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

এই পরীক্ষায় এক্সোসোমকে নিশানা করা হয়। এক্সোজোম হলো কোষের বার্তা বহনের জন্য নিঃসৃত ছোট ছোট প্যাকেট যাতে রোগের বর্ননা থাকে। এই প্যাকেটগুলোকে বিশ্লেষণ করে শরীরের নানাবিধ তথ্য সংগ্রহ করা যায়।

বর্তমানে প্রচলিত পরীক্ষা পদ্ধতিতে রোগ নির্নয়ের জন্য রক্তের নমুনাকে আল্ট্রাসেন্ট্রিফিউজ করা হয় যাতে অনেক সময় নমুনা ক্ষতিগ্রস্থ হয়। নতুন পদ্ধতিতে এই অসুবিধাও দূর হবে বলে উল্লেখ করেন গবেষকগণ।

গবেষকদলের একজন, এমআইটি’র মিং দাও বলেন, “পরিবেশের শব্দ তরঙ্গ অনেক কোমল। রক্তকণিকাগুলো এই ক্ষেত্রে রক্তরস হতে পৃথকীকরণের জন্য কেবল এক সেকেন্ড বা তারও কম সময়ের জন্য চাপের মধ্যে থাকবে যা একটি অনেক বড় সুবিধা।”

নতুন এই পদ্ধতি একই গবেষকদলের ২০১৪ সালে চালানো একটি কাজের ফসল। এই ক্ষেত্রে রক্তকে একটি ক্ষুদ্র চ্যানেলের মধ্য দিয়ে করিয়ে দুটি হেলানো ট্রান্সডিউসারের মধ্যে উন্মুক্ত করা হয়। দুটি ট্রান্সডিউসারের যৌথ কার্যক্রমে নিশ্চল শব্দ তরঙ্গ তৈরি হয় যেখানে রক্ত নমুনা আটকে যায়। এই অবস্থায় রক্ত কণিকার প্রকরণ অনুযায়ী এদের আলাদা করা যায়। দুটি ভিন্ন যন্ত্রের মধ্যে লোহিত রক্ত কণিকা এবং প্লেটলেটগুলোকে পৃথকভাবে সংগ্রহ করা হয়। আরেকটি উচ্চ কম্পাংকের শব্দ যন্ত্রের মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয় এক্সোসোম।

মিং দাও বলেন, “এই এক্সোসোমগুলো অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিশেষ অণু ধারন করে যার মাধ্যমে বিশেষ কোনো অসামঞ্জস্যতা পরিমাপ করা যায়। আপনি যদি এদের রক্ত হতে পৃথক করতে পারেন তাহলে এদের জৈবভাবে বিশ্লেষণ করে অনেক কিছু জানতে পারবেন।”

ইতিপূর্বে এক্সোসোমগুলোকে ক্যান্সার, কিডনিসমস্যা, এবং স্নায়বিক জটিলতার ইঙ্গিতবাহী হিসেবে দেখা গিয়েছিলো। কাজেই বর্তমান উদ্ভাবিত যন্ত্রের মাধ্যমে যদি সহজেই এক্সোজোমকে পৃথক করে বিশ্লেষণ করে রোগ নির্ণয় করা যায় তাহলে নিশ্চিতভাবেই চিকিৎসাক্ষেত্রে বিপ্লব সাধিত হবে। [ScienceAlert অবলম্বনে]

-বিজ্ঞান পত্রিকা ডেস্ক

Share.

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.