বিলুপ্ত কাস্পিয়ান বাঘকে ফিরিয়ে আনার পরিকল্পনা করছেন গবেষকগণ

0

কাস্পিয়ান বাঘ, বৈজ্ঞানিক নাম Panthara tigris virgata বাঘের একটি উপপ্রজাতি যা গত শতাব্দিতে ষাটের দশকে বিলুপ্ত হয়ে যায়। এই পশুগুলোর ওজন ১৬০ কিলোগ্রাম বা ৩০০ পাউন্ড পর্যন্ত হতে পারত, যা বেড়ালজাতীয় সবচেয়ে বড় প্রানীগুলোর একটি।

তবে সম্প্রতি প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে এগুলোকে ফিরিয়ে আনার সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। বাঘের অন্য আরেকটি উপপ্রজাতি এই কাজে সাহায্য করবে। এই উপপ্রজাতিটির বাস রাশিয়ার পূর্ব অঞ্চলে বসবাস করে। আন্তর্জাতিক গবেষকদের একটি দল সম্প্রতি এই উচ্চাভিলাষী প্রকল্প হাতে নিয়েছে যার অর্থায়ন করছে ওয়াল্ড ওয়াইল্ড লাইফ ফান্ড বা সংক্ষেপে WWF। তাঁরা পরিকল্পনা করছেন, এই উপপ্রজাতির অল্প কিছু বাঘকে মধ্য এশিয়ায় পুনরায় প্রচলিত করবেন।

গত শতাব্দীতে রাশিয়া যখন তুর্কিস্তান আক্রমণ করে উপনিবেশ স্থাপন করে তখন কাস্পিয়ান বাঘ চীন, কাজাখস্তান, ইরাক, আফগানিস্তানসহ সমগ্র মধ্য এশিয়া থেকে হারিয়ে যায়। জেনিটিক ম্যাপিং প্রযুক্তির মাধ্যমে দেখা গেছে এই বাঘের এবং পূর্বরাশিয়ার বাঘের পূর্বপুরুষ একই এবং এই দুটি প্রজাতির কিছু বাহ্যিক বৈশিষ্ট্যে অমিল থাকলেও এদের জিনগতভাবে পার্থক্যহীন বলে দেখা গেছে। কাজেই রাশিয়ার বাঘের সংখ্যাবৃদ্ধির মাধ্যমে তা মধ্য এশিয়ায় বিস্তরণের সম্ভাবনা হিসেবে ভাবা হচ্ছে।

ইতিমধ্যেই কাজাখস্তানের একই অঞ্চলকে এই বাঘ ছাড়ার উপযুক্ত স্থান হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে যা আগামী ৫০ বছরে একশ’টি সাইবেরিয়ান বাঘকে আশ্রয় দিতে পারবে। ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট সরকারগুলো এই প্রকল্পটিকে অনাপত্তি ছাড়পত্র দিয়েছে।

বাঘ সেসব প্রানীকে শিকার করে বেঁচে থাকে যেমন: হরিন বা বন্য শুয়োর সেগুলোকেও এই এলাকায় পুনারায় ছাড়া হবে। এছাড়া এই অঞ্চলের পানির উৎসটিকেও সতর্কতার সাথে নিয়ন্ত্রিত এবং সংরক্ষিত রাখা হবে। সামগ্রিকভাবে কাজটি মোটেও সহজ নয়. তবু এর মাধ্যমে কার্যকরভাবে কাস্পিয়ান বাঘকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হতে পারে। [iflscience.com অবলম্বনে]

-বিজ্ঞান পত্রিকা ডেস্ক

Share.

মন্তব্য করুন