লিঙ্গরূপান্তর: কী, কেনো, এবং লিঙ্গরূপান্তরকারীদের মনস্তত্ত্ব

0

(ট্রান্সসেক্সুয়ালিজমকে অনেকে রূপান্তরকাম বলে থাকেন বাঙলায়। তবে আমি লিঙ্গরূপান্তর শব্দটি (এবং ব্যক্তিদের জন্য লিঙ্গরূপান্তরকারী শব্দটি) ব্যবহারে আগ্রহী, ট্রান্সসেক্সুয়ালিজমের সাথে জড়িত আর্থসামাজিক ও মানসিক অবস্থা সঠিকভাবে ফুটিয়ে তোলার জন্য)।

লিঙ্গরূপান্তরকারী বা ট্রান্সসেক্সুয়ালদের (transsexual) মানসিক সংগ্রাম ভাষায় অবর্ণনীয়। সেক্স বা যৌনচিহ্ন হচ্ছে একজন ব্যক্তির জৈবিক বা শারীরিক গঠনচিহ্ন, অর্থাৎ শারীরিকভাবে নারী বা পুরুষ হওয়া- যেমন পুরুষদের শিশ্ন মেয়েদের যোনি থাকা ইত্যাদি। অন্যদিকে লিঙ্গ হচ্ছে ব্যক্তি নিজেকে কী মনে করে- নারী না কি পুরুষ, সে নারী হয়ে-ও নিজেকে ভেতরে পুরুষ ভাবতে পারে, পুরুষ হয়ে-ও নিজেকে নারী ভাবতে পারে। সমাজবিজ্ঞান অবশ্য লিঙ্গের আরো ব্যাপক সংজ্ঞা দেয়- সংস্কৃতি ও প্রথাকেন্দ্রিক অবস্থা আচার ইত্যাদি মিলিয়ে, যেমন পুরুষরা অনেক সংস্কৃতিতে পরিবারের প্রধান ইত্যাদি। লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি (gender identity disorder) হচ্ছে আপনার জৈবিক যৌনগঠনের সাথে আপনার লিঙ্গের গরমিল অনুভব করে মানসিকভাবে ভোগা, অর্থাৎ আপনি শারীরিক গঠন অনুসারে পুরুষ হলে-ও (পুংজননেন্দ্রিয়) আপনি নিজেকে নারী ভেবে মানসিক দুরাবস্থায় ভুগেন। এদেরকে লিঙ্গরূপান্তরকারী বলে, অনেকে অবশ্য সঠিকভাবে পুরুষ-থেকে-নারী লিঙ্গরূপান্তরকারী (male-to-female transsexuals) ও নারী-থেকে-পুরুষ লিঙ্গরূপান্তরকারী (female-to-male transsexuals) হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতে পছন্দ করেন, অনেকে লিঙ্গরূপান্তরকারী শব্দটাই পছন্দ করেন না।

মনোবিজ্ঞানীদের বাইবেল বা কোরান ডিএসএম (DSM-IV; Diagnostic and Statistical Manual of Mental Disorders) অনুসারে লিঙ্গপরিচয় হচ্ছে বিপরীত-লিঙ্গের সাথে নিজেকে খুব শক্তিশালীভাবে ও অটলভাবে সনাক্ত করা, এই ব্যক্তি নিজের জৈবিক বা জন্মগত যৌনতা নিয়ে গভীর অস্বস্তি অস্বচ্ছন্দ্যতায় ভুগেন এবং বিপরীতলিঙ্গের একজন হওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। যেমন, করিম জন্মগতভাবে পুরুষ হলে-ও সে নিজেকে নারী বা মেয়ে ভাবে এবং মনে করে সে যদি নারী হতে পারতো, এইসব চিন্তা তাকে মানসিক অশান্তিতে রাখে। এই ধরণের ব্যক্তিরা মনে করেন যে তারা “ভুল শরীরে বসবাস” করছেন, এবং অনেকসময় তারা এতো বেশি মানসিক অশান্তি বা চাপে ভুগেন যে তারা ঠিক মতো “স্বাভাবিকভাবে” কাজ করতে পারেন না। একটি বিষয় মনে রাখা দরকার যে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিকে যৌনপ্রবৃত্তি বা যৌনঝোঁক বা যৌনাকর্ষণের (sexual orientation/sexual attraction) সাথে তালগুলিয়ে না ফেলা, লিঙ্গপরিচয় ব্যাধির ক্ষেত্রে ব্যক্তি বিপরীত লিঙ্গের একজন হতে চান, অন্যদিকে যৌনাকর্ষণের ক্ষেত্রে ব্যক্তি বিপরীত লিঙ্গ বা সমলিঙ্গের প্রতি যৌনলিপ্সা অনুভব করেন।

অনেক অভিভাবক তাদের শিশুসন্তানদের মজা করে আদর করে বিপরীত লিঙ্গের জামাকাপড় পরান বা বিপরীত লিঙ্গের একজনের মতো আচার-আচরণ করতে নিষেধ করেন না, এটি কিন্তু স্বাভাবিক, অনেক বাচ্চারাও খেলার বশে এইসব করে, এতে দোষের কিছু নেই। অনেকক্ষেত্রেই বয়েস বাড়ার সাথে সাথে এইসব আর থাকে না, তবে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে ভোগা অনেক প্রাপ্তবয়ষ্ক ব্যক্তিই ছোটবেলায় এইসব সাজগোজ বা আচার আচরণের কথা বর্ণনা করেন, যেমন, ছোট একটি ছেলেশিশু বারবি পুতুল নিয়ে খেলা করে নিয়মিতভাবে। দেখা যায় যে এই ব্যাধিতে ভোগা অনেক ছেলেরাই নিজেদের সমকামী বা দ্বিকামী (bisexual) হিসেবে চিহ্নিত করেন বড় হলে (Zucker & Bradley, 1995), অনেক গবেষক মনে করেন যে বাচ্চাদের লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে রোগনির্ণয় (diagnosis) না করা, কারণ অনেক বাচ্চারাই কৈশোরে বা প্রাপ্তবয়ষ্ক হলে এই ব্যাধিতে আর ভুগে না (Lev, 2005)।

তবে কৈশোর বা প্রাপ্তবয়ষ্ক যেসব ব্যক্তি এই ব্যাধিতে ভুগেন তারা সাধারণ্ততাদের পছন্দের লিঙ্গের মতো সাজতে স্বাচ্ছদ্যবোধ করেন, তবে বিপরীতভূষিত বস্তুকামের (transvestic fetishism) তুলনায় এই ব্যাধিতে যারা ভুগেন তারা প্রকৃতই বিপরীত লিঙ্গের পোশাক ও সজ্জায় স্বাভাবিকবোধ করেন, কিন্তু বিপরীতভূষিত বস্তুকামের ক্ষেত্রে ব্যক্তি বিপরীত লিঙ্গের মতো সাজেন যৌনোদ্দেজনা বা যৌনানন্দের জন্য (Buhrich & McConaghy, 1978)। আত্মনারীপ্রীতি (autogynephilia) হচ্ছে নিজেকে একজন স্ত্রীলোক বা নারী হিসেবে কল্পনা করে যৌনভাবে উত্তেজিত হওয়া বা যৌনানন্দ লাভ করা, অনেক গবেষক একে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি হিসেবে চিহ্নিত করেন না।

main-qimg-59fe178958ba51635a92b1186085ec89-c

লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি কিন্তু অনেক দুর্ল্ভ। যদিও এই বিষয়ে গবেষণা অনেক কম, তবে নেদারল্যান্ডের এক গবেষণা দেখা গেছে যে প্রায় ১১৯০০ পুরুষে একজন এবং প্রায় ৩০৪০০ নারীতে একজন লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে ভুগেন, তবে যেহেতু এই ব্যাধিকে ঘিরে অনেক সামাজিক লজ্জা বা কলঙ্ক কাজ করে এবং অনেক দেশে (মুসলিম দেশগুলোতে) এটিকে সহজভাবে নেয়া হয় না সেসব দেশে বা সেইসব ক্ষেত্রে অনেকে নিজেকে সামাজিকভাবে প্রকাশ করতে পারেন না লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে ভোগা একজন হিসেবে (Bakker, van Kesteren, Gooren, & Bezemer, 1993)।

সাধারণ ২-৪ বছর বয়েসের মাঝেই বাবামায়েরা তাদের সন্তানের এই ‘অস্বাভাবিকতা’ ঠাহর করেন। ২৭৫ টি রেফারেলের উপর ভিত্তি করে প্রাপ্ত গবেষণা মতে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি সাধারণত ছেলেদের মাঝে মেয়েদের তুলনায় প্রায় ৬.৬ গুণ বেশি (Zucker, Bradley, & Sanikani, 1997)। Zucker এবং অন্যান্যদের (1997) মতে এর কারণ হয়তো সামাজিক, কারণ সামাজিকভাবে হয়তো ছেলেদের ব্যবহারে এই বিপরীতলিঙ্গের আচরণ গ্রহণযোগ্য নয়, কিন্তু মেয়েদের বেলায় হয়তো অনেক বেশি সীমা অতিক্রম করতে হয়, কিংবা মেয়েটিকে হয়তো ইঁচড়েপাকা হিসেবে দেখা হয়, অস্বাভাবিকভাবে নয়। আবার সাম্প্রতিককালে চালচলনের কারণে মেয়েরা ছেলেদের পোশাক পরলে সেটিকে দোষের কিছু হিসেবে দেখা হয় না, বরং ‘আধুনিক মেয়ে’ হিসেবে দেখা হয়, অথচ ছেলেদের ক্ষেত্রে এমনটি নয়।

লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে আক্রান্ত অনেক ব্যক্তিই প্রায় উদ্বেগ বা দুশ্চিন্তায়, এবং বিষণ্নতায় ভুগেন। ছোটবেলায় লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি দেখা দিলে এটি এবং বিচ্ছেদজনিত উদ্বেগ ব্যাধি (separation anxiety disorder) একত্রে দেখা দিতে পারে (Bradley & Zucker, 1997)।

সাম্প্রতিক গবেষণা নির্দেশ করে যে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধির অনেক জৈবিক কারণ আছে। নিউরোইমেজিং গবেষণায় দেখা গেছে যে যৌন উদ্দীপক বস্তু বা ছবির ক্ষেত্রে এবং মানসিক কাজের ক্ষেত্রে পুরুষ-থেকে-নারী লিঙ্গরূপান্তরকারীদের স্নায়ুবিক তৎপরতা বা সক্রিয়তা (brain activation) বিষমকামি পুরুষদের তুলনায় ভিন্ন, যদিও এইসব গবেষণার অন্যতম ক্রুটি হচ্ছে ছোট স্যাম্পল সাইজ এবং লিঙ্গরূপান্তরকারী রোগীদের নেয়া হরমোন চিকিৎসার প্রতিক্রিয়ার প্রভাব (Schoning et al., 2010; Gizewski et al., 2009)।

মনে করা হয় যে গর্ভকালীন অবস্থায় বিভিন্ন যৌন হরমোনের আধিক্য অথবা স্বল্পতার কারণে কিংবা হরমোনের পরিমাণের উনিশ-বিশ হওয়া লিঙ্গপরিচয় ব্যাধির ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে। মানুষ ও অন্যান্য অনেক শ্রেষ্ঠ বর্গভুক্ত স্তন্যপায়ী প্রাণীদের যেসব সন্তানের মায়েরা গর্ভকালীন সময়ে সেক্স হরমোন গ্রহণ করেন বিভিন্ন কারণে সেইসব সন্তানরা প্রায় বিপরীত লিঙ্গের মতো আচরণ করেন কিংবা তাদের শারীরিক কোনো না কোনো ক্রুটি দেখা দেয়, যেমন, একটি গবেষণায় দেখা গেলো যেযেসব মেয়েদের মায়েরা গর্ভকালীন সময়ে সংশ্লেষিত প্রোগেস্টিন (progrestin; পুরুষালি হরমোনের পূর্বপদার্থ (precursor)) গ্রহণ করেছেন গর্ভকালীন জরায়ু-সংক্রান্ত রক্তপাত এড়ানোর জন্য তাদের মেয়ে-সন্তানেরা প্রায় “টমবয়” বা “গেছোমেয়েদের” মতো আচরণ করে প্রাকবিদ্যালয়ে (Ehrhardt & Money, 1967)। এবং যেসব বাচ্চাছেলেদের মায়েরা গর্ভকালীন সময়ে মেয়েলি হরমোন গ্রহণ করেছেন তাদের ছেলেরা কম ক্রীড়াপারদর্শী হয়ে থাকে এবং তারা তাদের ছেলেবন্ধুদের তুলনায় রুক্ষ বা হাতাহাতি ধরণের খেলায় কম অংশগ্রহণ করে থাকে (Yalom, Green, & Fisk, 1973)।

যদিও এইসব ছেলেমেয়েরা লৈঙ্গিক আচরণের ক্ষেত্রে ‘অস্বাভাবিক’ রকমের নয়, কিন্তু তাদের মাঝে বিপরীত লিঙ্গের আচরণ বেশি পরিলক্ষিত হয়েছে। যদিও গর্ভকালীন অবস্থার যৌন হরমোন মাপা অনেক দুরূহ এবং বাচ্চা ও মায়ের জন্য বিপদজনক হতে পারে, একটি মোটামুটি বিকল্প উপায়আছে, মনে করা হয় যে তর্জনী ও অনামিকার তুলনামূলক দৈর্ঘ্য গর্ভের এন্ড্রোজনের (androgen) পরিমাণের সাথে সংশ্লিষ্ট (Manning, Scutt, Wilson, & Lewis-Jones, 1998)। পুরুষ-থেকে-নারী লিঙ্গরূপান্তরকারীদের ক্ষেত্রে, তর্জনী ও অনামিকার তুলনামূলক দৈর্ঘ্য অ-লিঙ্গরূপান্তরকারী পুরুষদের তুলনায় মেয়েদের তর্জনী ও অনামিকার তুলনামূলক দৈর্ঘ্যের মতো হয়ে থাকে (Schneider, Pickel, & Stalla, 2006)। যদিও আঙুলসমূহের তুলনামূলক দৈর্ঘ্য একটি ব্যাপক জনপ্রিয় পরিমাপ, তবে গর্ভাবস্থার এন্ড্রোজেন পরিমাণ নির্ণয়ের মাধ্যম হিসেবে এর নির্ভরতা ও সঠিকতা এখনো আরো ব্যাপক গবেষণার প্রয়োজন এবং এই বিষয়ে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। তবে দেখা গেছে যে দুই শ্রেণীর লিঙ্গরূপান্তরকারীরাই (পুরুষ-থেকে-নারী ও নারী-থেকে-পুরুষ) এবং লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে ভোগা ছেলেরা সাধারণ জনসংখ্যার তুলনায় বেশিভাগ ক্ষেত্রে বাঁ-হাতি হয়ে থাকে (Zucker, Beaulieu, Bradley, Grimshaw, & Wilcox, 2001)।

এছাড়া সাম্প্রতিক গবেষণা ক্রোমোজোমাল ও শারীরবৃত্তীয়অস্বাভাবিকতাকে-ও নির্দেশ করে। যেমন- নারী-থেকে-পুরুষ লিঙ্গরূপান্তরকারীদের ক্ষেত্রে তাদের শরীর অধিক পরিমাণে পুরুষালি হরমোন তৈরি করে (Dessens, Slijper, & Drop, 2005)।

পরিবেশের প্রভাব-ও বেশ গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সাক্ষাৎকার ও ব্যক্তিগত আলোচনা থেকে দেখা যায় যে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে আক্রান্তদের ছোটবেলায় বিপরীত লিঙ্গের আচরণকে নিষেধ করা হয় নি, ক্ষেত্রবিশেষে উৎসাহিত-ও করা হয়েছে, যেমন, নারী আত্মীয়াগণ হয়তো মেয়েলি ধরণের বাচ্চাকে বউ সাজান অথবা মায়ের মতো করে সাজিয়ে তুলেন, এইসব ঘটনা নিয়মিত বা বেশি ঘটলে সেটি বাচ্চাদেরকে তাদের জৈবিক লিঙ্গ ও লৈঙ্গিক আচরণের ক্ষেত্রে দ্বিধান্বিত করতে পারে।

একটি কথা মনে রাখা দরকার যে লিঙ্গের ধারণা সামাজিকভাবে গঠিত। অধিকাংশ দেশ ও সংস্কৃতিতে নারী ও পুরুষ এই দুই যৌন শ্রেণি থাকলে-ও অনেক সংস্কৃতি বা দেশে এর রকমভেদ আছে, যেমন বাঙলাদেশ, ভারত, থাইল্যান্ডে আন্তঃযৌনচিহ্নের ব্যক্তি বা হিজড়াদের দেখা মেলে। অন্যান্য অনেক মানবিক আচার-ব্যবহার, শারীরিক গঠন ইত্যাদির প্রকাশ একটি সন্ততি (Continuum) ধরে ঘটে তেমনি মানুষের যৌনতা, যৌনতার প্রকাশ ইত্যাদিও একটি সন্ততি ধরে ঘটে, সাদাকালোর মতো দ্বিবাচক নয়।

সামাজিক চেতনামূলক পরিপ্রেক্ষিত (social cognitive perspective) অনুসারে, মানুষের লিঙ্গ ধারণা গড়ে ওঠে সমাজের অন্যান্য সদস্যদের পর্যবেক্ষণলব্ধ শিক্ষা থেকে, অন্যান্যদের আচার ব্যবহার দেখে, নিজের আচারব্যবহারের প্রতি অন্যান্যদের প্রতিক্রিয়া কী কী, এবং পরিবার ও সমাজ দ্বারা লিঙ্গ-অনুযায়ী অনুমোদিত ব্যবহারের জন্য পুরষ্কৃত ও তিরষ্কৃত হওয়ার মাধ্যমে (Bussey & Bandura, 2004)। যেমন একটি নির্দিষ্ট বয়েসের পরে ছেলে “পুরুষদের” মতো কাজ করলে বা পুরুষদের মতো সাজলে সবাই বাহ বাহ দেয়। এইসব সামাজিক ও সাংস্কৃতিক চাপ সাধারণত ছেলেমেয়েদেরকে তাদের নিজ নিজ লিঙ্গ-অনুযায়ী অনুমোদিত ব্যবহারে “বাধ্য” করে। কিন্তু, এতো কিছুর পরে-ও ক্ষেত্রবিশেষে, লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে ভোগা ব্যক্তিগণ মনের করেন যে তারা বিপরীত লিঙ্গের একজন, এবং তারা ভুল শরীর নিয়ে আছেন।

অন্যান্য মানসিক বৈকল্য বা ব্যাধির ক্ষেত্রে আমরা মনোবিজ্ঞানিরা চেষ্টা করি রোগীর চিন্তাচেতনার ধারা, আবেগ অনুভূতিকে পরিবর্তন করতে, অনেকক্ষেত্রে আচরণ পরিবর্তনের জন্য-ও চেষ্টা করা হয়। তবে লিঙ্গপরিচয় ব্যাধিতে আক্রান্তদের জন্য সর্বোত্তম চিকিৎসা হচ্ছে ব্যক্তি নিজেকে যে লিঙ্গশ্রেণির সদস্য মনে করে সেই লিঙ্গে পরিবর্তন করা, অর্থাৎ করিম নিজেকে নারী মনে করলে হরমোন চিকিৎসা, লিঙ্গপরিবর্তন সার্জারির মাধ্যমে তাকে নারী হতে দেয়া, তার মনের সাথে শরীরের মিল তৈরি করা। মনোচিকিৎসা বা সাইকোথেরাপি দিলে-ও সেটি্র মূল লক্ষ্য থাকে রোগিকে নতুন লিঙ্গের আনুষঙ্গিক অবস্থা, চিন্তা চেতনা ব্যবহার ইত্যাদির সাথে সামঞ্জস্য বা তাল মিলিয়ে চলানোর জন্য সাহায্য করা, এবং সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে পুরো ব্যাপারটিকে ঘিরে সমাজ ও পরিবারের কাছ থেকে পাওয়া অনাকাঙ্খিত অবস্থা, অসদাচরণ, অনুভূতিগত বিপর্যয় থেকে রক্ষা করা বা খাপ খাইয়ে চলতে শেখানো।

এইক্ষেত্রে ছেলেমেয়ে এবং কিশোরকিশোরিদের জন্য বিদ্যমান চিকিৎসা অনেক বিতর্কের বিষয়। অনেকে মনে করেন এইসব চিকিৎসা ছেলেমেয়েদের উপযোগী নয় বা অনৈতিক এবং এতে করে শিশু কিশোরদের উপর সমাজের বেঁধে দেওয়া যৌনতা বা লিঙ্গের ধারণাকে চাপিয়ে দেয়া হয়। তবে এটি সত্য যে ছেলেমেয়ে বা কিশোরকিশোরিরা যদি তাদের লিঙ্গ-ভূমিকার সাথে সামঞ্জস্য সুসংগত আচরণ করে তবে বন্ধুবান্ধব ও অন্যান্যদের কাছে থেকে কম সমস্যার মুখোমুখি হয়ে বা আন্তর্সম্পর্কীয় সমস্যা কম দেখা দেয়।

অনেক মনোবিজ্ঞানি আবার মনে করেন যে ছোট থেকেই ইন্টারভিন করা ভালো, যদি ছোট থাকতেই ছেলেমেয়েদেরকে সাহায্য করা যায় তবে তারা বড় হতে হতে সহজে খাপ খাইয়ে নেয় এবং পরবর্তীতে তারা লিঙ্গ পরিবর্তন করলে-ও রূপান্তরটি তাদের জন্য অপেক্ষাকৃত “সহজ” বা কমঝামেলার মনে হয়।

যেহেতু লিঙ্গপরিবর্তনের অস্ত্রচিকিৎসা সারাজীবনের জন্যএকটি সিদ্ধান্ত, এবং ফেরার পথ নেই একবার পা বাড়ালে- অনেক অস্ত্রচিকিৎসক দ্বিধাবোধ করেন এই অস্ত্রচিকিৎসা করতে। বর্তমানে World Professional Assoication for Transgender Health এর Standards of Care for Gender Identity Disorders (2001) উল্লেখিত নির্দেশনামা অনুসারে লিঙ্গরূপান্তরকারীদের চিকিৎসা পদ্ধতি যাছাই করা হয়। এই নির্দেশনামা অনুসারে কিছু কিছু শর্ত অবশ্যই পূরণ হওয়া লাগবে লিঙ্গপরিবর্তনের অস্ত্রচিকিৎসার আগে- যেমন, লিঙ্গপরিচয় ব্যাধি সংক্রান্ত রোগনির্ণয়, এক বা অধিক মনোচিকিৎসক থেকে পরামর্শ নেয়া বা তাদের সাথে কাজ করা, এবং অস্ত্রচিকিৎসার আগে কমপক্ষে এক বছর হরমোন চিকিৎসা থাকাকালীন বিপরীত লিঙ্গের একজন হিসেবে বাস করা বা আচরণ করা। কিছু কিছু গবেষকদের মতে অনেক রোগি নানা ভুল তথ্য দেন বা ঘটনা বর্ণনা করেন অস্ত্রচিকিৎসার জন্য মনোনীত হতে, যেমন, অনেকে বলেন যে ছোটবেলা থেকে তাদের এই অসুখ বা তাদের জন্য বিষয়টি অসহ্যকর বা তাদের কোনো বিপরীতভূষিত বস্তুকাম নেই, কিংবা তারা সমকামী অথবা তারা এমন কিছু রোগি বা ঘটনা খুঁজে বের করেন যাদের অবস্থা তাদের অনুকূলে কাজ করে, যেমন, ‘আমার এক বন্ধু, রহিম, লিঙ্গপরিবর্তন করেছে এক বছর আগে, সেই থেকে সে সুখী আছে, আমি-ও সুখী হতে চাই, আমার-ও লিঙ্গপরিবর্তনের অস্ত্রচিকিৎসা করা দরকার’ ইত্যাদি (Lev, 2005)। তবে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই, লিঙ্গপরিবর্তনের অস্ত্রচিকিৎসা মানসিক ও শারীরিকভাবে স্বাভাবিক ও ধনাত্মক ফলাফল বয়ে আনে, এবং অনেকের যৌন কার্যক্ষমতার উন্নতি হয় (Klein & Gorzalka, 2009)।যদিও কিছু কিছু অপ্রীতিকর ঘটনা-ও ঘটে তবে সেইসব অস্ত্রচিকিৎসা-সংক্রান্ত জটিলতার কারণে, যেটিতে প্রত্যক্ষভাবে কিছু করার থাকে না বা আগে থেকে টের পাওয়া যায় না।

আমাদের সবার মনে রাখা দরকার যে প্রচলিত লিঙ্গ ও যৌন ধারণার বাইরে-ও অনেক ধরণের লিঙ্গ ও যৌন ধারণা রয়েছে। বিজ্ঞান কখনো নির্দেশ করে না কোনটি ভালো বা খারাপ। প্রতিটি মানুষেরই, বিশেষ করে বিজ্ঞানমনষ্ক মানুষের উচিত অন্য মানুষের একান্ত ব্যক্তিগত নির্বাচন, যেমন লিঙ্গ ও যৌন নির্বাচনকে সম্মান করা, এতে হয়তো আপনার অস্বস্তি হতে পারে কিংবা আপনার ধর্মীয় অথবা নৈতিক শিক্ষার সাথে অসামঞ্জস্য হতে পারে কিন্তু এইসব মানসিক ব্যাধি বা সমস্যায় যারা ভুগেন তাদের যাপনের যন্ত্রণা কিছুটা-ও হলে কমতে পারে যদি আমরা সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দিই অথবা তাদের প্রতি জাজমেন্টাল না হয়ে উঠি।

[তথ্যসূত্র

American Psychiatric Association. (2013). Diagnostic and statistical manual of mental disorders (DSM-5®). American Psychiatric Pub.

Bussey, K., & Bandura, A. (2004). Social Cognitive Theory of Gender Development and Functioning.

Bradley, S. J., & Zucker, K. J. (1997). Gender Identity Disorder: A Review of the Past 10 YearsG. Journal of the American Academy of Child & Adolescent Psychiatry, 36(7), 872-880.

Bakker, A., Kesteren, P. V., Gooren, L. J., & Bezemer, P. D. (1993). The prevalence of transsexualism in the Netherlands. Acta psychiatrica scandinavica, 87(4), 237-238.

Buhrich, N., & McConaghy, N. (1978). Two clinically discrete syndromes of transsexualism. The British Journal of Psychiatry, 133(1), 73-76.

Buhrich, N., & McConaghy, N. (1978). Parental Relationships during Childhood in Homosexuality, Transvestism and Transsexualism*. Australian and New Zealand Journal of Psychiatry, 12(2), 103-108.

Dessens, A. B., Slijper, F. M., & Drop, S. L. (2005). Gender dysphoria and gender change in chromosomal females with congenital adrenal hyperplasia. Archives of Sexual Behavior, 34(4), 389-397.

Ehrhardt, A. A., & Money, J. (1967). Progestin‐induced hermaphroditism: IQ and psychosexual identity in a study of ten girls∗∗. Journal of Sex Research, 3(1), 83-100.

Gizewski, E. R., Krause, E., Schlamann, M., Happich, F., Ladd, M. E., Forsting, M., & Senf, W. (2009). Specific cerebral activation due to visual erotic stimuli in male-to-female transsexuals compared with male and female controls: an fMRI study. The journal of sexual medicine, 6(2), 440-448.

Klein, C., & Gorzalka, B. B. (2009). Continuing Medical Education: Sexual Functioning in Transsexuals Following Hormone Therapy and Genital Surgery: A Review (CME). The Journal of Sexual Medicine, 6(11), 2922-2939.

Lev, A. I. (2006). Disordering gender identity: Gender identity disorder in the DSM-IV-TR. Journal of Psychology & Human Sexuality, 17(3-4), 35-69.

Manning, J. T., Scutt, D., Wilson, J., & Lewis-Jones, D. I. (1998). The ratio of 2nd to 4th digit length: a predictor of sperm numbers and concentrations of testosterone, luteinizing hormone and oestrogen.Human reproduction, 13(11), 3000-3004.

Schneider, H. J., Pickel, J., & Stalla, G. K. (2006). Typical female 2nd–4th finger length (2D: 4D) ratios in male-to-female transsexuals—possible implications for prenatal androgen exposure.Psychoneuroendocrinology, 31(2), 265-269.

Schöning, S., Engelien, A., Bauer, C., Kugel, H., Kersting, A., Roestel, C., … & Heindel, W. (2010). Neuroimaging differences in spatial cognition between men and male-to-female transsexuals before and during hormone therapy. The journal of sexual medicine, 7(5), 1858-1867.

Yalom, I. D., Green, R., & Fisk, N. (1973). Prenatal exposure to female hormones: Effect on psychosexual development in boys. Archives of General Psychiatry, 28(4), 554-561.

Zucker, K. J., & Bradley, S. J. (1995). Gender identity disorder and psychosexual problems in children and adolescents. Guilford Press.

Zucker, K. J., Bradley, S. J., & Sanikhani, M. (1997). Sex differences in referral rates of children with gender identity disorder: Some hypotheses. Journal of Abnormal Child Psychology, 25(3), 217-227.

Zucker, K. J., Beaulieu, N., Bradley, S. J., Grimshaw, G. M., & Wilcox, A. (2001). Handedness in boys with gender identity disorder. Journal of Child Psychology and Psychiatry, 42(6), 767-776.]

-আশরাফ মাহমুদ
গবেষক, কবি ও লেখক
[লেখকের ফেসবুক প্রোফাইল]

Share.

মন্তব্য করুন