প্রথমবারের মতো ক্যামেরায় ধরা পড়ল গভীর সমুদ্রের ভুতুড়ে হাঙ্গর

0

মহাসাগরের তলদেশের বিপুল জগতের অনেক কিছু আমাদের জানা বাকী। চিরস্থায়ী অন্ধকারে ঘেরা গিরিখাত এবং আগ্নেয়গিরি অঞ্চলগুলো নানাবিধ অজানা প্রজাতির প্রানী এমনকি একটি নতুন আবিষ্কৃত তিমিরও আশ্রয়স্থল। এমনকি যেসব প্রজাতি সম্বন্ধে আমাদের জানা আছে সেগুলোরও জীবন ও আচরণগত জ্ঞান আমাদের ভাসা ভাসা।

এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অদ্ভুদ দর্শন ভুতুড়ে হাঙ্গর (চিমেরা), যা হাঙ্গর এবং রে জাতীয় মাছের কাছাকাছি। ভুতুড়ে হাঙ্গর প্রাচীন ধরনের মাছ যারা তরুনাস্থিময় আধুনিক হাঙ্গরের কাছ থেকে প্রায় ৪০ কোটি বছর আগে পৃথক হয়ে গেছে এবং সেই সময় হতে অদ্যাবধি পানির ২৬০০ মিটার গভীরে বসবাস করছে।

তাদের লম্বা বিবর্তনীয় ইতিহাস থাকা সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত তাদের সম্বন্ধে খুব সামান্যই জানা গেছে। তবে সম্প্রতি গবেষকগণ প্রথমবারের মতো এদের একটি প্রজাতিকে গভীর সমুদ্রে চরে বেড়ানোর সময় ক্যামেরা-বন্দী করতে পেরেছেন যার নাম তীক্ষ্ন নাসা চিমেরা। এটি একটি দৈবক্রমে প্রাপ্ত ভিডিও ফুটেজ, যখন ভুতাত্তিকগণ ক্যালিফোর্নিয়া এবং হাওয়াইয়ের মাঝের সমুদ্রে ৬৭০০ ফুট গভীরে একটি সমুদ্রযান নামিয়েছেন গবেষনার জন্য তখন এটি পাওয়া যায়।

প্রথমিকভাবে ধারনা করা হয় এটি একটি নতুন প্রজাতির চিমেরা, তবে পরবর্তীতে ভৌতিক হাঙ্গর বিশেষজ্ঞদের কাছে আনা হলে বোঝা যায় এটি আসলে তীক্ষ্ন নাসা চিমেরা। এই ভিডিও ফুটেজই এই প্রানীর প্রথম ধারণকৃত দৃশ্য। শুধু তাই নয়, পূর্বে ধারনা ছিলো এটি কেবল অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের নিকটবর্তী সমুদ্রতটের কাছেই বিচরণ করে। এর মাধ্যমে ভিডিওটি শুধু দৃশ্য ধারনই নয়, বরং জ্ঞানেরও বিস্তৃতি করেছে।

বিশেষজ্ঞগণ এখন এই ধরনের হাঙ্গরের ডিএনএ উদ্ঘাটন করে এর প্রকৃত পরিচয় সনাক্ত করতে চান এবং আনুষ্ঠানিক ভাবে নিশ্চিত হতে চান এটি আমেরিকার সমুদ্রেরই বাসিন্দা। নমুনার জন্য তাঁরা সমুদ্রফেরত জেলেদের ধরে আনা মাছের দিকে চোখ রাখবেন। [ iflscience.com অবলম্বনে ]

-বিজ্ঞান পত্রিকা ডেস্ক

Share.

মন্তব্য করুন