সুন্দরবনের অনতিদূরে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন না করার আহ্বান অনুসন্ধিৎসু চক্রের

0
105

অনুসন্ধিৎসু চক্রের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমানুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আরাফাত রহমান আজ এক বিবৃতিতে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক রক্ষাবর্ম সুন্দরবনের অনতিদূরে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন না করতে সরকারের/ সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে তারা বলেছেন, বাংলাদেশে সরকার সুন্দরবনের সংরক্ষিত বনের অনতিদূরে একটি কয়লাভিত্তিক ১৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র বসাতে যাচ্ছেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে যৌথ মালিকানায় বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ও ভারতের রাষ্ট্রীয় কোম্পানি ‘এনটিপিসি’র (ন্যাশনাল থার্মাল পাওয়ার কোম্পানি)। আমরা মনে করি সুন্দরবনের এত কাছে কয়লাভিত্তিক কেন্দ্র সুন্দরবনের ও পাশ্ববর্তী লোকালয়ের ক্ষতি করবে। রামপালের জন্য প্রতি বছর ৪৭ লাখ টন কয়লা, চুনাপাথর ইত্যাদিসুন্দরবনের মধ্য দিয়ে পরিবহন করতে হবে। কয়লা পোড়ানোর জন্য সাব-ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তির পরিবর্তে সুপার-ক্রিটিক্যাল পদ্ধতি প্রয়োগ করলে কয়লা পুড়ে নিঃশেষিতহওয়ার হার ৩৮ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪২ শতাংশ হবে। এই সামান্য পরিবর্তনে বায়ুদূষণ বৃদ্ধির খুব রকমফের হবে না।রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে সৃষ্ট বিপুল পরিমাণউষ্ণ ও দূষিত পানি সংশ্লিস্ট বাস্তুসংস্থানে যুক্ত হলে এবং আশপাশে বহু শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠলে তা পৃথিবীর এই একক বৃহত্তম প্রাকৃতিক ম্যানগ্রোভ বনেরসংবেদনশীল প্রতিবেশ ব্যবস্থার প্রতি ঝুঁকি আরও বাড়িয়েই তুলবে। বিজ্ঞান সংগঠন অনুসন্ধিৎসু চক্র দেশের বিদ্যুৎ চাহিদা মেটাতে সুন্দরবন থেকে দূরে যৌক্তিক কোন স্থানে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে।

সূত্র: প্রেস বিজ্ঞপ্তি, অনুসন্ধিৎসু চক্র

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.