দাঁত পরিষ্কারের পদ্ধতিগত ত্রুটি সংশোধন করবে স্বয়ং টুথব্রাশ

0

মানুষের দৈনন্দিন জীবনে কিছু কাজ থাকে,যেগুলোকে জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে ধরে নেয়া যায়। সেই কাজগুলো স্বাস্থ্যের জন্যও বেশ উপকারী। কাজগুলো নিয়মিত,সময়মাফিক না করলে এক ধরনের চাপা অস্বস্তি মনে যেন ভর করে। এই দৈনন্দিন কাজগুলোর মধ্যে দাঁত ব্রাশ করা অন্যতম। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর ও রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে আমরা কমবেশি সবাই দাঁত ব্রাশ করি।দাঁত ব্রাশের সময় আমরা সাধারণত আয়নার সামনে দাঁড়াই,টুথব্রাশের উপর টুথপেস্ট নিই আর  দাঁতের সঙ্গে ব্রাশ ঘষতে থাকি। কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা কিভাবে ব্রাশ করতে হয়। অধিকাংশ মানুষই এক্ষেত্রে ভূল পদ্ধতি অনুসরণ করে।

অনেকেই জানেন যে, দিনে দুইবার কমপক্ষে ২ মিনিট ধরে দাঁত ব্রাশ করতে হয়। এর ফলে মাড়ির ক্ষয় ও দাঁতের বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্ত থাকা যায়। কিন্তু দাঁত ব্রাশের পদ্ধতিও যে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এটা বেশির ভাগ মানুষেরই অজানা। অধিকাংশ মানুষ টুথব্রাশ তাদের দাঁত ও মাড়ির সাথে লম্বালম্বিভাবে রেখে ব্রাশ করে।এর ফলে ব্রাশ মাড়িকে উপরের দিকে চাপ দেয়। এতে মাড়ির গোড়া নরম হয়ে আলগা হয়ে যায়।এমনকি অনেক সময় দাঁতের এনামেল(সাদা অংশ) থেকেও তা পৃথক হয়ে পড়ে। তাই এই পদ্ধতিতে ব্রাশ করলে তা উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি করবে।ব্রাশ করার সঠিক পদ্ধতি হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের ডেন্টাল অ্যাসোসিয়েশন দাঁতের মাড়ির সাথে ৪৫ ডিগ্রি কোণ করে টুথব্রাশ ধরার পরামর্শ দিয়েছে। এছাড়াও তারা সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্যে দাঁতব্রাশ শেষ করার উপর গুরুত্ব আরোপ করেছে।তাদের ধারণা,নিয়মিত ও সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত ব্রাশ করলে স্ট্রোকের ঝুঁকিও অনেক কমে।

কিন্তু মানুষ মাত্রই অভ্যাসের দাস। তার পক্ষে রাতারাতি কোন অভ্যাস পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। অনেকে আবার অভ্যাস পরিবর্তনে অনাগ্রহও দেখায়। তাই গবেষকরা এমন এক টুথব্রাশ তৈরি করেছেন, যা আমাদের ব্রাশ করার পুরনো অভ্যাস অপরিবর্তিত রেখেই ডেন্টিস্টদের সুপারিশকৃত পদ্ধতিতেই দাঁতব্রাশ করবে। অর্থাৎ এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আমাদের ভূলকে সংশোধন করে দেবে। এর নাম রাখা হয়েছে আইব্রাশ-৩৬৫। এটি একটি বিদ্যুতচালিত টুথব্রাশ। এর মাথা সিলিন্ডার আকৃতির যাতে ১৩০০০ নরম ও ক্ষুদ্র ব্রিস্টল (টুথব্রাশের মাথায় বিদ্যমান লোমের মত অংশ যা দাঁত পরিষ্কারে ব্যবহার করা হয়) থাকে। প্রচলিত ব্রাশে মাত্র ২৫০০ ব্রিস্টল থাকে। ফলে এই ব্রাশ ব্যবহারে ১ মিনিটেরও কম সময়ে সম্পূর্ণ মুখ পরিষ্কার হয়ে যাবে।

ব্রাশটিকে দাঁতের সাথে লম্বালম্বিভাবে ধরতে হবে ও সেটিকে মুখের মধ্যে পাশাপাশি চালনা করতে হবে। বিদ্যুতচালিত ব্রাশের মাথা এমনভাবে ঘোরে যেন দাঁতগুলো সবসময় উপর থেকে নিচের দিকে পরিষ্কার হয়।এছাড়াও নির্মাতারা ব্রিস্টলগুলোকে এমনভাবে তৈরি করেছেন,যেন ব্রাশ করার সময় সেগুলো দাঁতের মাড়ির সাথে ৪৫ ডিগ্রি কোণে অবস্থান করে।ব্রাশের মাথা দুই দিকেই ঘুরতে পারে (ঘড়ির কাটার ঘূর্ণনের দিকে অথবা তার বিপরীত দিকে)। ঘোরার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে যেন তা দাঁতগুলোকে সবসময় উপর থেকে নিচের দিকেই শুধু পরিষ্কার করে।তাই এর ঘূর্ণনের দিক পরিবর্তন ও নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি ছোট বৈদ্যুতিক বাটন ব্রাশের সাথে যুক্ত রয়েছে। এছাড়াও ব্রাশের মাথা সিলিন্ডার আকৃতির হওয়ায় সেটি দাঁতের পাশাপাশি দাঁতের মাড়ি,চোয়াল,জিহবাও পরিষ্কার করতে সক্ষম।

আইব্রাশ-৩৬৫ তে লিথিয়াম আয়নের ব্যাটারী ব্যবহার করা হয়েছে। এটি বেশ বিদ্যুতসাশ্রয়ী। একবার পর্যাপ্ত চার্জ দিলে তা প্রায় ৬ সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী থাকবে। ব্যবহারকারীরা মোবাইল অথবা ল্যাপটপের ইউএসবি চার্জার দিয়ে একে চার্জিত করতে পারবে।তবে চার্জিত হওয়ার জন্য প্লাগে ১১০ থেকে ২৪০ ভোল্ট ভোল্টেজ থাকতে হবে।

আইব্রাশ-৩৬৫ কে ৩০০ জনেরও অধিক মানুষকে পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করতে দেওযা হয়। পরীক্ষণে দেখা যায়,এটি বাজারে বিদ্যমান যেকোনো টুথব্রাশের চেয়ে অনেক দ্রুত ও সঠিক পদ্ধতিতে দাঁত পরিষ্কার করে।

এর প্রাথমিক মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৯ ডলার (আনুমানিক সাড়ে ৬ হাজার টাকা)। আগামী ১-২ মাসের মাঝেই একে বাজারজাত করা যাবে বলে নির্মাতারা আশা করছেন।

-নাসরুল্লাহ্ মাসুদ

Share.

মন্তব্য করুন