২৪ ঘণ্টায় প্রায় ৫০ মিলিয়ন গাছ রোপণ করেছে ভারত

0

ধুলাবালি আর পরিবেশ দূষণে দুষিত ভারত হঠাৎ করে সবুজের রঙে সেজেছে। ভারতে গত ১১ জুলাই একযোগে প্রায় ৫০ মিলিয়ন (৫ কোটি) গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। যা একদিনের গাছ লাগানোর জন্য একটি রেকর্ড। ক্রমবর্ধমান পরিবেশ দূষণ রোধ করতে এবং পরিবেশ সংরক্ষণের জন্য সচেতনতা তৈরি করতে ভারতের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের লোকজন এই উদ্যোগে যোগ দেয়।

গত সোমবার ভারতের উত্তর প্রদেশে এই কার্যক্রম শুরু হয়। দেশের সর্বস্তরের মানুষ তথা নারী, পুরুষ, ছাত্র-ছাত্রী, চাকুরীজীবী, গৃহিণী সহ সকল পেশার মানুষ এই কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। সারাদেশ মিলিয়ে প্রায় ৮ লক্ষ মানুষ একদিনে ৪৯.৩ মিলিয়ন গাছের চারা রোপণ করে। এদের মাঝে প্রায় ৮০ টি ভিন্ন ভিন্ন প্রজাতি রয়েছে। রোপণ করার জন্য এতগুলো চারা সরবরাহ করেছে সাড়ে নয়শোটি নার্সারি।

এর আগে অধিক চারা রোপণের এই রেকর্ড ছিল পাকিস্তানের। ২০১৩ সালে ৮ লক্ষ ৪৭ হাজার ২৭৫ টি গাছ লাগিয়ে কয়েক বছর ব্যাপী রেকর্ড ধরে রেখেছিল পাকিস্তান। গত সোমবার ভারত এই রেকর্ডকে অনেক অনেক গুণ পেছনে ফেলে রেকর্ড করে নিয়েছে। ভারতের এই কার্যক্রম ইতিমধ্যেই গিনেজ বুক রেকর্ডে স্থান করে নিয়েছে।

ব্যাপক পরিসরে এমন বৃক্ষ রোপণের উদ্দেশ্য ছিল জনসচেতনতা তৈরি করা, দূষণে জর্জরিত ভারতকে আবারো সবুজ করে তোলার গুরুত্ব সকলকে অনুধাবন করতে সাহায্য করা, গাছ লাগানোর জন্য ভারতবাসীকে উৎসাহ প্রদান করা। ফ্রান্সের প্যারিসে হয়ে যাওয়া আন্তর্জাতিক ক্লাইমেট চেঞ্জ কনফারেন্স-এ ভারত ২০৩০ সালের ভেতর ৯৫ মিলিয়ন হেক্টর (২৩৫ মিলিয়ন একর) জায়গায় বনায়ন করার প্রতিশ্রুতি প্রদান করে। ৯৫ মিলিয়ন হেক্টর জায়গায় বনায়নের জন্য ভারত খরচ করবে ৬.২ বিলিয়ন ডলার। প্যারিসে দেয়া প্রতিশ্রুতির অংশ হিসেবেই এবার লাগানো হয়েছে ৫০ মিলিয়ন গাছের চারা।

ভারতের একটি প্রচলিত দৃশ্য। এমন দৃশ্যে বৃক্ষের অনুপস্থিতিই চোখে পড়ে। ছবিঃ কোনাল মেহতা।

ভারতের একটি প্রচলিত দৃশ্য। এমন দৃশ্যে বৃক্ষের অনুপস্থিতিই চোখে পড়ে। ছবিঃ কোনাল মেহতা।

মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যদব এসোসিয়েটেড প্রেস (এপি)-কে বলেন “পৃথিবী অনুধাবন করেছে বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তন রোধ করতে এবং ক্রমবর্ধমান হারে কার্বন নিঃসরণের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে হলে গুরুত্বপূর্ণ ও কার্যকরী কিছু পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।” গাছ লাগানোর এই উদ্যোগ হতে পারে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে থাকা পরিবেশ সচেতনতার একটি মাইলফলক।

ভারতে অনিয়ন্ত্রিত ও অতিরিক্ত হারে জনসংখ্যা বৃদ্ধির প্রয়োজনে তৈরি হয় অপরিকল্পিত নগরায়ন। অপরিকল্পিত নগরায়ন ও প্রান্তিক পর্যায়ে সকলের অসচেতনতার জন্য তৈরি হয় দুষিত ও নিম্ন মানের বায়ু। ভারতের দুষিত বায়ু সারা বিশ্বে কুখ্যাত। সাম্প্রতিক একটি রিপোর্ট বলছে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দুষিত ১০ টি শহরের মাঝে ভারতেরই আছে ৬ টি। এরা হচ্ছে Gwalior, Allahabad, Patna, Raipur, Ludhiana, এবং Delhi। এমন দুষিত শহরের মানুষদের হৃৎপিণ্ড ও ফুসফুসের জটিলতায় আক্রান্ত হবার ঝুঁকি প্রবল। এসব একটি রাষ্ট্রের জন্য নেতিবাচক। এরকম ক্রান্তি অবস্থান থেকে মানুষকে বাঁচাতে পারে গাছ।

ভারতের এই উদ্যোগ একটি অনুকরণীয় উদাহরণ হয়ে থাকবে। বাংলাদেশও অনেক দুষিত। বাংলাদেশেরও উচিৎ খুব গুরুত্ব দিয়ে এরকম একটি উদ্যোগ হাতে নেয়া। [iflscience অবলম্বনে]

-সিরাজাম মুনির শ্রাবণ

Share.

মন্তব্য করুন