‘স্বচ্ছ কাঠ’ তৈরি করলেন বিজ্ঞানীরা

0

খাট, শোকেস, আলমারি সহ অন্যান্য অনেক ক্ষেত্রেই কাঠের ব্যবহার হয়ে আসছে। সহজলভ্য, শক্ত ও সস্তা হওয়াতে সেই শতাব্দী প্রাচীন সময় থেকেই মানুষ তার প্রয়োজনে কাঠ ব্যবহার করে আসছে। কিছু দিন পর হয়তো আমরা কাঠের আরো কিছু ব্যবহার দেখবো যা আগে কখনো দেখিনি। জানালা বা আসবাবপত্রে কিংবা বড় দালানে কাচ ব্যবহার করা হয়। কাচ খুব বেশি দামী না হলেও খুব সস্তাও নয়। কাঠের দামের সাথে তুলনা করলে কাচ যথেষ্টই দামী।

বিজ্ঞানীরা এবার সিলিকা নির্মিত কাচের বিকল্প হিসেবে কাঠের কথা ভাবছেন। তাঁরা কাঠকে কাচের মতো স্বচ্ছ করার একটি উপায় বের করেছেন। এই উপায় সবার জন্য সহজলভ্য হলে তুলনামূলকভাবে অনেক কম দামেই মানুষ কাচেঁর মতো জিনিসপত্র ব্যবহার করতে পারবে। পাশাপাশি বাড়তি সুবিধাও পাবে। কাচ খুব ভঙ্গুর, অল্পতেই ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যায়। কাঠ ব্যবহার করলে এই সমস্যা থেকেও নিস্তার পাওয়া যাবে।

প্রফেসর বার্গলান্ড এর নেতৃত্বে সুইডেনের KTH রয়্যাল ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির একদল গবেষক এমন স্বচ্ছ কাচ তৈরি করার প্রক্রিয়া বের করেন। প্রথমে রাসায়নিকভাবে কাঠের তন্তু (fiber) থেকে লিগনিন অপসারণ করার মাধ্যমে তাদের কাজ শুরু করেন। লিগনিন হচ্ছে উদ্ভিদ-কোষের কোষপ্রাচীরের এক প্রকার উপাদান, যা খুব অস্বচ্ছ। এরপর কাঠের তন্তুতে যা অবশিষ্ট থাকে তা অনেক পরিষ্কার হলেও পুরোপুরি স্বচ্ছ নয়।

কাঙ্ক্ষিত স্বচ্ছতা পাবার জন্য বিজ্ঞানীরা এর মাঝে ‘প্রিপলিমারাজাইজড মিথাইল মিথাক্রাইলেট- (PMMA)’ নামে এক প্রকার পদার্থের মিশ্রণ ঘটান। এই মিশ্রণ কাঠ তন্তুকে প্রায় স্বচ্ছ পর্যায়ে নিয়ে যায়। মিশ্রণটি কাঠের প্রতিফলন ধর্মকে কমিয়ে প্রতিসরণ ধর্মকে বাড়িয়ে তুলে। উল্লেখ্য কোনো বস্তুকে আমরা স্বচ্ছ দেখবো নাকি অস্বচ্ছ দেখবো তা নির্ভর করে পদার্থটির প্রতিফলন ও প্রতিসরণ ধর্মের উপরে। বস্তু থেকে আলোর প্রতিফলন বেশি হলে একে খুব বেশি অস্বচ্ছ দেখাবে। আলোর প্রতিসরণ বেশি বস্তুটিকে বেশি স্বচ্ছ দেখাবে। আর প্রতিফলন ও প্রতিসরণ যদি কম হয় অর্থাৎ বস্তুটি যদি আলো শোষণ করে তাহলে একে অন্ধকার বা কালো দেখাবে।

এই পদ্ধতিতে কাঠ পুরোপুরি কাচের মতো স্বচ্ছ হয় না কিন্তু যথেষ্ট স্বচ্ছ হয়। কতটুকু স্বচ্ছ হবে তা নির্ভর করে প্রিপলিমারাজাইজড মিথাইল মিথাক্রাইলেট এর মিশ্রণের অনুপাতের উপর। মিশ্রণটি যদি সঠিক অনুপাতে করা যায় তাহলে একদম কাচের মতোই স্বচ্ছ দেখাবে কাঠকে।

উল্লেখ্য কাঠকে স্বচ্ছ করার প্রক্রিয়া এটিই প্রথম নয়। অস্বচ্ছ কোনোকিছুকে স্বচ্ছ করার বাসনা সেই প্রাচীনকাল থেকেই। এইচ. জি. ওয়েলস তো স্বয়ং মানুষকেই অদৃশ্য করে কল্পবিজ্ঞান ফেঁদে বসেছিলেন। তিনি সেই আকাঙ্খা থেকে ‘অদৃশ্য মানব- The Invisible Man’ নামে কালজয়ী কল্পবিজ্ঞান লিখলেন। সাম্প্রতিক এই গবেষণার আগেও কাঠের তৈরি কম্পিউটার চিপ তৈরি করতে কাঠকে স্বচ্ছ করা হয়েছিল। তখন এই কাজে ন্যানোফাইব্রিল্যাটেড সেলুলোজ ব্যবহার করা হয়েছিল। তবে এটা বিশেষ কাজে ব্যবহার করা হয়েছিল, সর্বসাধারণের জন্য নয়। সাম্প্রতিক গবেষণাটি সবার কাজে আসবে। এটি প্রান্তিক পর্যায়ে গেলে সকলেই এর সুবিধা উপভোগ করতে পারবে।

গবেষকরা বর্তমানে এই প্রক্রিয়াটিকে আরো সহজসাধ্য ও আরো বেশি পরিমাণ স্বচ্ছতা পেতে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদের গবেষণার বিস্তারিত প্রকাশ করেছেন বায়োম্যাক্রোমলিকিউল নামের একটি জার্নালে।

⚫ সিরাজাম মুনির

Share.

মন্তব্য করুন